২ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ‘কোনও কিছুই রাতারাতি করা সম্ভব নয়। উপত্যকায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে সরকারকে সময় দিতে হবে।’ মঙ্গলবার, কাশ্মীর ইস্যুতে কেন্দ্রের পাশে দাঁড়িয়ে এমনটাই পর্যবেক্ষণ সুপ্রিম কোর্টের।

[আরও পড়ুন: রাজ্যপালের চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করলেন রাহুল, স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলতে যাবেন কাশ্মীরে!]

৩৭০ ধারা রদের পর  জম্মু ও কাশ্মীরে প্রশাসনিক কড়াকড়ি শিথিল করা নিয়ে শীর্ষ আদালতে দ্বারস্থ হন সমাজকর্মী তেহসিন পুনাওয়ালা। ওই মামলার প্রেক্ষিতেই আদালত জানায় যে উপত্যকায় স্বাভাবিক পরিস্থিতি ফিরিয়ে আনতে সরকারকে সময় দিতে হবে। এদিন আদালতে অ্যাটর্নি জেনারেল কে কে বেণুগোপাল যুক্তি দেন, ‘কাশ্মীর অত্যন্ত স্পর্শকাতর এবং জটিল বিষয়। সরকার সর্বক্ষণ পরিস্থিতির উপর নজর রাখছে। এখনও পর্যন্ত এক বিন্দু রক্ত ঝড়েনি উপত্যকায়।  কোনও প্রাণহানিও হয়নি।’ জম্মু ও কাশ্মীরের মুখ্যসচিব আর কানসাল আদালতে জানান, ২০০৮ ও ২০১৬ সালে বেনজির হিংসা প্রত্যক্ষ করে উপত্যকা। ২০১৬ সালের প্রথম সপ্তাহেই হিংসায় মৃত্যু হয় অন্তত ৩৭ জনের। এবার নিরাপত্তা ব্যবস্থা মজবুত থাকায় অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়ানো গিয়েছে। আগেই থেকে উপযুক্ত পদক্ষেপ করায় অনেকের প্রাণ বাঁচান গিয়েছে।

উভয়পক্ষের যুক্তি শোনার পর মামলাটির পরবর্তী শুনানি দু’সপ্তাহ পিছিয়ে দেয় আদালত। পর্যবেক্ষণে আদালত সাফ জানায়, রাতারাতি কোনও কিছু করা সম্ভব নয়। দু’সপ্তাহ ধরে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করবে আদালত। উল্লেখ্য, সংবিধানের বিতর্কিত ৩৭০ ধারা বাতিল করা নিয়ে শীর্ষ আদালতে মামলা করেছে ন্যাশনাল কণফারেন্স। উল্লেখ্য, সোমবার জম্মু ও কাশ্মীরের বিভিন্ন মসজিদে ইদের নমাজ পড়ে আট থেকে আশি। কোথাও কোনও অশান্তির খবর পাওয়া যায়নি। বরং শ্রীনগরের বিভিন্ন মসজিদে নমাজের পর স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে মিষ্টি বিলি করতে দেখা যায় পুলিশ আধিকারিকদের।

[আরও পড়ুন: সশস্ত্র ২ দুষ্কৃতীকে চটি ও চেয়ার ছুঁড়ে মারধর বৃদ্ধ দম্পতির, ভাইরাল ভিডিও]

 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং