২৮ কার্তিক  ১৪২৬  শুক্রবার ১৫ নভেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কাশ্মীর ইস্যুতে রাজ্যপাল সত্যপাল মালিক এবং কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীর বাক-বিতণ্ডা চরমে। সোমবার সত্যপাল মালিক রাহুলকে যে চ্যালেঞ্জ করেছিলেন, তা গ্রহণ করলেন প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি। জানিয়ে দিলেন, রাজ্যপালের আমন্ত্রণ গ্রহণ করে কাশ্মীরে যাবেন তিনি। সেজন্য বিমান পাঠানোরও প্রয়োজন নেই। শুধু চাই স্বাধীনতা। বিরোধী দলের নেতারা যাতে স্বাধীনভাবে উপত্যকার মানুষের সাথে কথা বলতে পারেন সেই ব্যবস্থা করলেই চলবে।

[আরও পড়ুন: মেট্রো স্টেশনে হামলার ছক, ছদ্মবেশে দেশে ঢুকে পড়েছে পাক জেহাদি দল]

শনিবার কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকে কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়। বৈঠক থেকে বেরিয়ে এসে রাহুল গান্ধী দাবি করেন, কাশ্মীর থেকে অশান্তির খবর এসে পৌঁছাচ্ছে। ওখানকার পরিস্থিতি ঠিক নেই। কাশ্মীরের মতো কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ঠিক কী হচ্ছে তা প্রধানমন্ত্রীকে স্পষ্ট করতে হবে।” কংগ্রেস নেতার এই মন্তব্যের প্রেক্ষিতে সত্যপাল মালিক বলেন, “রাহুল গান্ধী একজন দায়িত্ববান মানুষ। ওনার এই ধরনের মন্তব্য করা উচিত হয়নি। দিল্লি থেকে কাশ্মীরের পরিস্থিতি বোঝা সম্ভব না। আমি ওনাকে চ্যালেঞ্জ করছি, কাশ্মীরের পরিস্থিতি বুঝতে হলে উপত্যকায় আসুন, প্রয়োজনে আপনার জন্য বিমান পাঠানোর ব্যবস্থা আমি করছি।’

[আরও পড়ুন: ‘কাশ্মীরে মুসলিম বেশি বলেই ৩৭০ ধারার বিলুপ্তিকরণ’, বিতর্কিত মন্তব্য চিদম্বরমের]

সোমবার মালিক যে চ্যালেঞ্জ করেছিলেন মঙ্গলবারই তার জবাব দিলেন রাহুল। জানিয়ে দিলেন, তিনি এবং বিরোধী দলনেতা-সহ একটি প্রতিনিধিদল যাবে কাশ্মীরে। সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি বলেন, “প্রিয় রাজ্যপাল, আপনার আন্তরিক আমন্ত্রণ আমি আন্তরিকতার সঙ্গে গ্রহণ করছি। আমাদের কাশ্মীর যাওয়ার জন্য কোনও বিমান পাঠানোর প্রয়োজন নেই। শুধু দয়া করে নিশ্চিত করুন, যাতে আমরা স্বাধীনভাবে উপত্যকায় ঘুরতে পারি। প্রথমসারির রাজনৈতিক দলের নেতাদের সঙ্গে, কাশ্মীরের স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে এবং সেখানে মোতায়েন আমাদের সেনা জওয়ানদের সঙ্গে কথা বলতে পারি।” আসলে এই আমন্ত্রণ গ্রহণের মধ্যেও রাহুল গান্ধী রাজ্যপালকে ঘুরিয়ে কটাক্ষই করেছেন। প্রসঙ্গত, ৩৭০ ধারা বিলোপ হওয়ার আগে থেকেই কাশ্মীরে গৃহবন্দি রয়েছেন প্রথম সারির একাধিক রাজনৈতিক দলের নেতা। রাষ্ট্রপতি ৩৭০ ধারা বিলোপ করার বিজ্ঞপ্তি জারির পরও কাশ্মীরে ঢুকতে পারেননি রাজ্যসভার বিরোধী দলনেতা গুলাম নবি আজাদ। কাশ্মীরে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়নি প্রথম সারির দুই বামপন্থী নেতা সীতারাম ইয়েচুরি এবং ডি রাজাকে। এই পরিস্থিতিতে রাহুল যেতে চাইলেও আদৌ তাঁকে অনুমতি দেওয়া হবে কিনা তা নিয়েও রয়েছে সংশয়।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং