৩ শ্রাবণ  ১৪২৬  শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার
বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ

৩ শ্রাবণ  ১৪২৬  শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিচারপতির সংখ্যা বৃদ্ধি এবং হাই কোর্টের বিচারপতিদের অবসরের বয়স ৬৫ করার আর্জি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লিখলেন প্রধান বিচারপতি। সেই সঙ্গে ১২৮ ও ২২৪-এ অনুচ্ছেদ অনুসারে, সুপ্রিম কোর্টের ও হাই কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতিদের মেয়াদকালীন ভিত্তিতে নিয়োগের ঝুলে থাকা বিষয়গুলি নিষ্পত্তির অনুরোধ জানিয়েছেন।

[আরও পড়ুন- অসুস্থ মহিলাকে হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা, আমেঠিবাসীর মন জয় মানবিক স্মৃতির]

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে মোট তিনটি চিঠি লিখেছেন সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি। তাতে তিনি উল্লেখ করেন, বর্তমানে শীর্ষ আদালতে ৫৮,৬৬৯টি মামলা ঝুলে রয়েছে। এই মুহূর্তে যদি তার মীমাংসা করতে হয় তাহলে একজন বিচারপতির ভাগে পড়বে ১৯০০ মামলা। প্রতিদিন নতুন নতুন মামলা শুরু হওয়ার কারণে সংখ্যাটা আরও বাড়ছে। বিচারপতির অভাবে আইনের প্রশ্নে গুরুত্বপূর্ণ মামলায় সিদ্ধান্ত নিতে সাংবিধানিক বেঞ্চ গঠন করা যাচ্ছে না?

বিচারপতিদের সংখ্যা নিয়ে তিনি লিখেছেন, তিন দশক আগে ১৯৮৮ সালে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতির সংখ্যা ১৮ থেকে বাড়িয়ে ২৬ করা হয়েছিল। এরপর দু’দশক পর ২০০৯ সালে প্রধান বিচারপতি-সহ বিচারপতির সংখ্যা বাড়িয়ে ৩১ করা হয়। বিচারপতির সংখ্যা বাড়ানোর বিষয়টিকে অগ্রাধিকার দিয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিন। যাতে দেশের মানুষের দ্রুত সুবিচার পেতে সুবিধা হয়। হাই কোর্টেও বিচারপতির সংখ্যা কম থাকার জন্য খুব সমস্যা হচ্ছে। হাই কোর্টের বিচারপতিদের অবসরের বয়স ৬২ থেকে বাড়িয়ে ৬৫ করা হলে এই সমস্যার অনেকটা সমাধান হবে। এর জন্য সংবিধানে প্রয়োজনীয় সংশোধন করা হোক।

[আরও পড়ুন- লজ্জা! বিনা টিকিটে ভ্রমণের অভিযোগে ধৃত এবার রেলেরই সুপারিশ কমিটির সদস্য]

এপ্রসঙ্গে তিনি জানান, হাই কোর্টে বিচারপতির সংখ্যা কম থাকার কারণেই ক্রমবর্ধমান মামলার সংখ্যার সঙ্গে তাল মেলানো যাচ্ছে না। বর্তমানে ৩৯৯টি পদ, মানে অনুমোদিত সংখ্যার ৩৭ শতাংশ পদ শূন্য রয়েছে। এখনই এই শূন্যপদগুলি পূরণ হওয়া প্রয়োজন। তাঁর মতে, বিচারপতিদের অবসরের বয়স বাড়ালে বাড়তে থাকা শূন্যপদের সমস্যা সামলানো যাবে। তেমনি কমবে অমীমাংসিত মামলার সংখ্যাও।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং