BREAKING NEWS

১৪ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

অবিশ্বাস্য! এবার অনলাইনে প্রতারণার শিকার খোদ প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: June 3, 2019 12:43 pm|    Updated: June 3, 2019 2:58 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: এক সময় ছিলেন বিচারব্যবস্থার শীর্ষে। কাজ করেছেন দেশের প্রধান বিচারপতি হিসেবে। দীর্ঘদিন কাজ করেছেন সুপ্রিম কোর্টে, ও একাধিক হাই কোর্টে। তাঁর নির্দেশেই বিসিসিআইয়ের খোলনলচে বদলে গিয়েছে। এহেন ব্যক্তিকেই এবার অনলাইনে প্রতারণার শিকার হতে হল। সুপরিকল্পিতভাবে ১ লক্ষ টাকা প্রতারণা করা হল বিচারপতি আর এম লোধাকে।

[আরও পড়ুন: জোর করে চাপিয়ে দেওয়া হবে না হিন্দি, আশ্বাস বিদেশমন্ত্রীর]

সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি আর এম লোধা দিল্লির একটি থানায় অনলাইন প্রতারণার অভিযোগ দায়ের করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, গত ১৯ মে রাতে তিনি তাঁর ঘনিষ্ঠ বন্ধু তথা প্রাক্তন সহকর্মী বিচারপতি বি পি সিংয়ের কাছ থেকে একটি ই-মেল পান। সেই ই-মেলের মাধ্যমে বিচারপতি সিং, বিচারপতি লোধার কাছে সাহায্য চান। তিনি জানান,”আমার এক আত্মীয় অসুস্থ, এই মুহূর্তে ফোনে যোগাযোগ করতে পারছি না, তাই ই-মেলের মাধ্যমে যোগাযোগ করছি। আত্মীয়ের চিকিৎসার জন্য ৯৫ হাজার টাকা প্রয়োজন। কিন্তু আপাতত আমার কাছে সেই টাকাটা নেই।” বিচারপতি লোধা বলেন, ওই ই-মেলে লেখা ছিল, বিচারপতি সিংয়ের আত্মীয়ের লিম্ফোব্লাস্টিক লিউকোমিয়া হয়েছে। চিকিৎসকের অ্যাকাউন্টে ১ লক্ষ টাকা ট্রান্সফার করে দিলে তিনি উপকৃত হবেন।

[আরও পড়ুন: আদালতের নির্দেশে এবার মানুষের মতো সব অধিকার পাবে পশুরাও]

বন্ধুর বিপদে খুব স্বাভাবিকভাবেই এগিয়ে আসেন বিচারপতি লোধা। দুই কিস্তিতে চিকিৎসকের নামে যে অ্যাকাউন্ট নম্বর দেওয়া ছিল, সেই অ্যাকাউন্টে ১ লক্ষ টাকা ট্রান্সফার করে দেন তিনি। তখনকার মতো সমস্যা মেটে। কিন্তু, বিচারপতি লোধার ভুল ভাঙে ঘটনার ১১ দিন পরে। অন্য একটি ই-মেল আইডি থেকে তিনি বন্ধু তথা বিচারপতি সিংয়ের বার্তা পান। যাতে, বিচারপতি সিং জানান যে তাঁর ই-মেল আইডিটি হ্যাক হয়েছে। এবং তিনি তাতে লগ-ইন করতে পারছেন না। এরপরই খোঁজখবর করে বিচারপতি লোধা বুঝতে পারেন, তিনি প্রতারণার শিকার হয়েছেন। বন্ধুর ই-মেল আইডি হ্যাক করে অন্য কেউ তাঁর কাছ থেকে ১ লক্ষ টাকা বাগিয়ে নিয়েছে। পুরো ঘটনা বুঝতে পেরে দিল্লির মালব্যনগর থানায় একটি এফআইআর দায়ের করেছেন বিচারপতি লোধা। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। তবে, এখনও কাউকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement