৩১ ভাদ্র  ১৪২৬  বুধবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: জনসভা থেকে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকার, কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী সব জায়গায় দাবি করছেন, নরেন্দ্র মোদি এবারের নির্বাচনে হারবেন। মোদি আর প্রধানমন্ত্রী হতে পারবেন না। কিন্তু কীসের ভিত্তিতে এত আত্মবিশ্বাসের সুরে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ছে কংগ্রেস? রাহুল গান্ধীর দাবি, কংগ্রেসের অভ্যন্তরীণ সমীক্ষার ভিত্তিতেই তিনি নিশ্চিত, মোদি আর ফিরছেন না। কিন্তু, কী বলছে কংগ্রেসের অভ্যন্তরীণ সমীক্ষা? তবে কি ক্ষমতায় ফিরছেন রাহুলরা? কি ইঙ্গিত কংগ্রেসের অভ্যন্তরীণ সমীক্ষায়? আসুন দেখা যাক।

[আরও পড়ুন: শিখ দাঙ্গা নিয়ে মন্তব্যের জের, স্যাম পিত্রোদাকে ক্ষমা চাওয়ার নির্দেশ রাহুলের]

একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, এ বছর লোকসভায় ভাল ফল করার ব্যপারে আশাবাদী কংগ্রেস। তৃণমূলস্তর থেকে যে রিপোর্ট কংগ্রেস দপ্তরে এসে পৌঁছাচ্ছে, তাতে রাহুল গান্ধীরা ২০০৪ সালের থেকে এবার ভাল ফল করবেন বলে ইঙ্গিত মিলছে। এমনকী একার শক্তিতে কংগ্রেসের আসন সংখ্যা দেড়শো পেরিয়ে যেতে পারে বলেও দাবি কংগ্রেস নেতাদের। নাম জানাতে অনিচ্ছুক এক কংগ্রেস নেতা সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, কংগ্রেসের সর্বোচ্চ আসন সংখ্যা দেড়শোও ছাড়িয়ে যেতে পারে। আর যদি, দল খুবই খারাপ ফলাফল করে তবুও শতাধিক আসন আসছে কংগ্রেসের ঝুলিতে।

[আরও পড়ুন: রোদ এড়াতে ডামি দিয়ে ভোটপ্রচার! ফের বিতর্কে গম্ভীর]

কিন্তু, কোন রাজ্য থেকে ক’টা আসন পাওয়ার আশা করছে কংগ্রেস? তা অবশ্য বলতে রাজি হননি ওই নেতা। তিনি শুধু জানিয়েছেন, খুব খারাপ ফলাফল হলেও ১০১ টি আসন পাবে কংগ্রেস। সর্বনিম্ন এই আসন প্রাপ্তির ক্ষেত্রে অবশ্য তিনি হিসেব অনেকটাই স্পষ্ট করেছেন৷ ওই কংগ্রেস নেতা বলেন, “উত্তরপ্রদেশ থেকে ২টি, কেরলে ২০টি আসনের মধ্যে ১৪টি, কর্ণাটক, মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান, মহারাষ্ট্র এবং পাঞ্জাব থেকে অন্তত ১০টি করে। ছত্তিশগড়ে ৭টি, গুজরাট এবং ঝাড়খণ্ডে পাঁচটি করে আসন পাওয়া নিশ্চিত। তামিলনাড়ুতেও পাঁচটি আসন পাওয়ার ব্যপারে আশাবাদী দল। যে রাজ্যগুলিতে কংগ্রেস দুর্বল সেগুলির মধ্যে, বিহারে ৩টি, অসমে ৪টি,হরিয়ানায় ২টি এবং বাংলা, গোয়া, মেঘালয়, গোয়া এবং পুদুচেরিতে একটি করে আসন পাওয়ার ব্যপারে আশাবাদী কংগ্রস।” কংগ্রেস নেতারা বলছেন, এটা ন্যূনতম৷ ২৩ মে ফলাফল বেরনোর পর আসন সংখ্যা অনেকটাই বাড়বে বলে আশাবাদী দলের শীর্ষ নেতারা।উল্লেখ্য, এর আগে নাগপুর টাইমস নামের একটি সংবাদমাধ্যম আরএসএসের অভ্যন্তরীণ সমীক্ষার যে রিপোর্ট পেশ করেছিল, তাতেও কংগ্রেসকে ১৪০-এর আশেপাশেই দেখানো হয়েছিল। 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং