BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ফাঁসি এড়াতে মরিয়া নির্ভয়ার ধর্ষকরা, এবার দিল্লির উপরাজ্যপালের দ্বারস্থ বিনয়

Published by: Paramita Paul |    Posted: March 9, 2020 5:02 pm|    Updated: March 9, 2020 5:02 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: নির্ভয়ার চার ধর্ষক ফাঁসি এড়াতে মরিয়া। নতুন করে কিউরেটিভ আরজি জানাতে চেয়ে আগালতের দ্বারস্থ হয়েছেন মুকেশের আইনজীবী এম এল শর্মা। এবার মক্কেলনকে বাঁচাতে দিল্লির উপ রাজ্যপালের দ্বারস্থ হয়েন বিনয় শর্মার আইনজীবী এ পি সিং। মৃত্যুদণ্ডের বদলে বিনয়ের যাবজ্জীবন জেল হেফাজতের আবেদন জানিয়েছেন তিনি। ইতিপূর্বে সুপ্রিম কোর্টে বিনয়ের এই আরজি খারিজ হয়ে গিয়েছিল। এরপর নতুন করে মৃত্যু পরোয়ানা জারি করেছে দিল্লির পাতিয়ালা হাউস কোর্ট। ২০ মার্চ ভোর সাড়ে পাঁচটায় নির্ভয়ার চার দোষীর ফাঁসি হওয়ার কথা। কিন্তু এখনও ফাঁসি এড়াতে মরিয়া প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে চার অপরাধী।

[আরও পড়ুন : অরুণাচলের সেলা পাসে তুষার ঝড়, আটক ৩৯০ জন পর্যটককে উদ্ধার করল সেনা]

উন্নত চিকিৎসার দাবিতে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন নির্ভয়ার ধর্ষক-খুনি বিনয় শর্মার আইনজীবী। সেই আরজি খারিজ করে দেয় দিল্লির পাতিয়ালা হাউস কোর্ট। আদালতের সাফ কথা, মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামীর ক্ষেত্রে দুশ্চিন্তা, হতাশা স্বাভাবিক। বিনয়তে যথাযথ চিকিৎসার সুবিধা দেওয়া হচ্ছে বলেও জানিয়ে দেয় আদালত। বিনয়ের আইনজীবীর দাবি ছিল, তার মক্কেলের মাথায় গুরুতর আঘাত লেগেছে। স্ক্রিৎজোফেনিয়ায় ভুগছে সে। তাই তার উন্নতমানের চিকিৎসা প্রয়োজন। যদিও তা মানতে নারাজ তিহার জেল কর্তৃপক্ষ।

[আরো পড়ুন : আদালতে ধাক্কা যোগী সরকারের, CAA প্রতিবাদীদের নামের পোস্টার সরানোর নির্দেশ]

২০১৮ সালে মুকেশের প্রাণভিক্ষার আরজি খারিজ করেছিলেন রাষ্ট্রপতি। সেইসময় তার কিউরেটিভ আরজিও খারিজ হয়ে যায়। কিন্তু মুকেশের বর্তমান আইনজীবী এম এল শর্মার অভিযোগ, রাষ্ট্রপতি আরজি খারিজের সাতদিনের মধ্যেই কিউরেটিভ আরজি জানাতে বাধ্য করেছিলেন মুকেশের তৎকালীন আইনজীবী বৃন্দা গ্রোভার। কার্যত জোর করে মুকেশকে সেই নথিতে স্বাক্ষর করিয়েছিলেন বলেও অভিযোগ। তাই মুকেশ যাতে ‘স্বেচ্ছায়’ ফের একবার এই আবেদন জানাতে পারন, তার ব্যবস্থা করতে তৎপর এম এল শর্মা। একইসঙ্গে তাঁর দাবি, ২০২১ সালের জুলাই পর্যন্ত মুকেশকে সময় দেওয়া হোক। আদালত মুকেশের আরজি গ্রহণ করে কিনা তার দিকে তাকিয়ে গোটা দেশ।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement