BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘লকডাউনেও দেশে করোনার দাপট কমছে না’, মত এইমসের ডিরেক্টরের

Published by: Paramita Paul |    Posted: May 7, 2020 5:26 pm|    Updated: May 7, 2020 5:26 pm

An Images

ফাইল ফটো

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: লকডাউনের পর মাস পেরিয়েছে। কিন্তু করোনা আক্রান্তের সংখ্যা কমার লক্ষ্মণ নেই। বরং ইতিমধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা পঞ্চাশ হাজার ছাড়িয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই ট্রেন্ড চলতে থাকলে জুন-জুলাই মাসে দেশে আক্রান্তের সংখ্যো সর্বোচ্চ হবে। বৃহস্পতিবার দিল্লি AIIMS’র ডিরেক্টর ড. রণদীপ গুলেরিয়া একথা জানান।

করোনায় ত্রস্ত গোটা বিশ্ব। সময় যতই এগোচ্ছে ততই দাপট বাড়াচ্ছে মারণ ভাইরাস। বিশ্বে ৩৭ লক্ষেরও বেশি মানুষ আক্রান্ত। মৃতের সংখ্যা ২ লক্ষ ৬৩ হাজার ছাড়িয়েছে। ভারতের সংখ্যাও বাড়াচ্ছে উদ্বেগ। আক্রান্ত ৫২,৯৫২। মৃত্যু হয়েছে ১৭৮৩ জনের। এই পরিস্থিতিতে করোনা সংক্রমণকে জব্দ করতে ১৭ মে পর্যন্ত লকডাউনের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে।

[আরও পড়ুন : করোনায় মৃত দিল্লির ২ বিএসএফ জওয়ান, টুইটে শোকপ্রকাশ অমিত শাহের]

একটানা ৪০ দিনেরও বেশি সময় ধরে  দেশে চলছে লকডাউন। কিন্তু তাতেও মারণ ভাইরাসের দাপটে লাগাম পড়ানো সম্ভব হয়নি। বরং করোনা আ্ক্রান্তের সংখ্যা ক্রমাগত বাড়ছে। ড. রণদীপ গুলেরিয়া বলেন, “ইটালি, চিনে লকডাউন তুলে দেওয়ার পর কড়াভাবে সামাজিক দূরত্ব মানা হচ্ছে। তার সুফলও পেয়েছে দেশবাসী। কিন্তু ভারতের ক্ষেত্রে সেই একই ফল মিলবে তা বলা যাচ্ছে না।” উলটে তাঁর আশঙ্কা, “এখন যেভাবে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে তাতে জুন-জুলাইয়ে আক্রান্তের সংখ্যা সর্বাধিক হতে পারে।” একইসঙ্গে তাঁর সতর্কবাণী, তবে সঠিক সময় বলাটা বেশ মুশকিল। তাই আমাদের প্রস্তুত থাকা দরকার। একইসঙ্গে তিনি লকডাউন আরও বাড়ানোর পক্ষেও সওয়াল করেন। তবে অবশ্যই অর্থনীতির দিকটা দেখে তবেই এই লকডাউন বাড়ানো হোক বলে মতপ্রকাশ করেছেন তিনি।

[আরও পড়ুন : মাত্র ৪৫ মিনিটে পাঁচ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণ! লকডাউনে গ্রাহকদের জন্য দরাজ SBI]

 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement