BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

করোনা থাবা বসাল রুজি-রুটিতে, চাকরি খোয়ালেন Zomato-র কয়েকশো কর্মী

Published by: Sulaya Singha |    Posted: May 15, 2020 4:52 pm|    Updated: May 15, 2020 4:52 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: উবেরের পর এবার জোম্যাটো। করোনার জেরে আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়ে কর্মী ছাঁটাইয়ের সিদ্ধান্ত নিল এই অনলাইন খাবার ডেলিভারির অ্যাপও। শুক্রবারই জোম্যাটোর সিইও দিপিন্দার গোয়েল জানিয়ে দিলেন, কোম্পানির প্রায় ১৩ শতাংশ কর্মীকে বরখাস্ত করা হল। সেই সঙ্গে অন্তত ছ’মাসের জন্য কমে যাচ্ছে বাকিদের বেতন।

যতদিন যাচ্ছে, নিজের দাপট বাড়াচ্ছে মারণ ভাইরাস। কেড়ে নিচ্ছে মানুষের রুজি-রুটি। বৃহস্পতিবারই জুম অ্যাপের মাধ্যমে ভিডিও কল করে সাড়ে তিন হাজার কর্মীকে বরখাস্ত করার কথা জানিয়েছিলেন উবেরের গ্রাহক পরিষেবা বিভাগের প্রধান। পরের দিন অর্থাৎ আজ সেই একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটল। এবার জোম্যাটোর অফিসে। জুম অ্যাপে ভিডিও কলে কোম্পানির সিইও জানিয়ে দিলেন, কোম্পানির ছ’শোরও বেশি কর্মীকে বরখাস্ত করা হচ্ছে। সেই সঙ্গে বাকি কর্মীদের বেতনে কাটছাঁটের কথাও ঘোষণা করলেন। তিনি বলেন, অন্তত ছ’মাসের জন্য প্রত্যেকের বেতন কমানো হবে। জুন থেকে নতুন অঙ্কের বেতন পাবেন কর্মীরা। উচ্চপদস্থ কর্মীদের ৫০ শতাংশ পর্যন্ত বেতন কমতে পারে বলেও স্পষ্ট করে দেন তিনি।

[আরও পড়ুন: তিন মিনিটের ভিডিও কলে চাকরি গেল সাড়ে ৩ হাজার কর্মীর, নিন্দার ঝড় নেটদুনিয়ায়]

তবে উবেরের তুলনায় খানিকটা মানবিক জোম্যাটো। সিইও বলেন, “করোনার জেরে নানা ধরনের প্রতিকূলতার সম্মুখীন হচ্ছি আমরা। তাছাড়া লকডাউন থাকায় সমস্ত কর্মীদের কাজ দিতে পারছি না। কঠিন পরিস্থিতিতে আমাদের কর্মীরা কাজ করছে। কিন্তু ১৩ শতাংশ কর্মীকে আর কাজে রাখা সম্ভব হবে না। তারা যাতে অন্য চাকরি খুঁজে নিতে পারে, তার জন্য আগামী কয়েকদিন আমরা ভিডিও কলে আলোচনা করব। তবে যাদের চাকরি যাচ্ছে, কোম্পানি তাদের আগামী ৬ মাস ৫০ শতাংশ বেতন দেবে।” একই সঙ্গে তিনি জানান, এমন কিছু এজেন্সি রয়েছে যারা জোম্যাটোকে কর্মী দেয়। অর্থাৎ যে কর্মীরা কোম্পানির পে রোলের বাইরে, তাঁরাও যাতে আগামী দু’মাসের বেতন পান, সে ব্যবস্থাও করা হবে।

কোম্পানিতে যে বেশ কিছু কর্মীর বেতন কমতে চলেছে, সে ইঙ্গিত আগেই দিয়েছিলেন গোয়েল। তবে এবার জানালেন, কোম্পানির সমস্ত কর্মীরই বেতনে কাটছাঁট হবে। বেতন অনুযায়ী ঠিক হবে হ্রাসের হার। আসলে করোনার জেরে স্থায়ীভাবে বন্ধ হয়ে গিয়েছে বহু রেস্তরাঁ। তাছাড়া বাইরের খাবার খেতেও অনেকের অনীহা। ফলে কমেছে অর্ডারের সংখ্যাও। আর তাই বড় অঙ্কের লোকসান হয়েছে জোম্যাটোর। কবে এই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে, নাকি আরও প্রতিকূল হবে, ভেবে কূল পাচ্ছে না কোম্পানি। সেই জন্য আর্থিক ক্ষতি ঠেকাতে অনেক কর্মীর ক্ষেত্রে ‘আজীবন’ ওয়ার্ক ফ্রম হোমের কথাও চিন্তা করা হচ্ছে।

[আরও পড়ুন: লকডাউনের মাঝে ফের নতুন রিচার্জ প্ল্যান আনল জিও, জেনে নিন খুঁটিনাটি]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement