BREAKING NEWS

১২ কার্তিক  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৯ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

সরকারের অর্থনৈতিক সিদ্ধান্তে আদালতের হস্তক্ষেপ করা উচিত নয়, সুপ্রিম কোর্টকে জানাল কেন্দ্র

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: October 10, 2020 2:25 pm|    Updated: October 10, 2020 3:36 pm

An Images

ফাইল ফটো

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সরকারের অর্থনৈতিক সিদ্ধান্তে আদালতের হস্তক্ষেপ করা উচিত নয়। আদালতে মামলা দায়ের করে আর্থিক প্যাকেজ পাওয়া যায় না। সুপ্রিম কোর্টকে (Supreme Court) স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিল কেন্দ্র। যার সহজ অর্থ করলে দাঁড়ায়, আর্থিক নীতি সংক্রান্ত কোনও বিষয়ে সর্বোচ্চ আদালত চাইলেও কেন্দ্র জবাবদিহি করবে না।

লকডাউনের সময় মোরাটরিয়ামে ইএমআইয়ের (EMI) উপর সুদ সংক্রান্ত মামলায় শুক্রবার সুপ্রিম কোর্টে একটা হলফনামা জমা দিয়েছে কেন্দ্র। যাতে স্পষ্ট বলা হয়েছে,”আলাদা আলাদা সেক্টরকে আর নতুন করে আর্থিক সাহায্য করা সম্ভব নয়। আর কেন্দ্রের আর্থিক পলিসিতে আদালতের হস্তক্ষেপ করা উচিত নয়।” আসলে, মোরাটরিয়াম পিরিয়ডে ইএমআইয়ের উপর সুদ নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরেই জলঘোলা হচ্ছে সর্বোচ্চ আদালতে। আসলে, লকডাউনের সময় মধ্যবিত্তকে স্বস্তি দিয়ে ৬ মাসের জন্য মেয়াদি ঋণের ইএমআই স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল কেন্দ্র।সেইমতো ওই ছ’মাসের জন্য ইএমআই স্থগিতও করে দেয় একাধিক রাষ্ট্রায়ত্ত ও কিছু বেসরকারি ব্যাংক। কিন্তু কিছুদিন আগেই ব্যাংক ঋণের কিস্তি স্থগিত করা সংক্রান্ত একটি মামলা দায়ের হয় শীর্ষ আদালতে। অভিযোগ ওঠে স্থগিত থাকা EMI-এর উপর উপর আরও সুদ চাপাচ্ছে ব্যাংকগুলি। ফলে গ্রাহকরা চূড়ান্ত সমস্যায় পড়ছেন। লকডাউন আবহে ঋণের মোরেটোরিয়ামে সুদের উপর সুদ নেওয়া হবে কেন? তা নিয়ে কেন্দ্র এবং ব্যাংকগুলিকে পালটা প্রশ্ন করে সুপ্রিম কোর্ট। বলা ভাল, ব্যাংক এবং কেন্দ্রকে তিরস্কার করে শীর্ষ আদালত।

[আরও পড়ুন: ‘দাবি না মানলে হবে না শেষকৃত্য’, রাজস্থানে পুরোহিত মৃত্যুর ৪৮ ঘণ্টা পরও অনড় পরিবার]

চাপে পড়ে গত সপ্তাহেই কেন্দ্র জানিয়েছিল লকডাউনের (Lock Down) সময়কার মোরাটরিয়াম পিরিয়ডে ২ কোটি টাকা পর্যন্ত ঋণের ক্ষেত্রে ইএমআইয়ের উপর অতিরিক্ত কোনও সুদ গুণতে হবে না গ্রহীতাদের। ২ কোটি টাকা পর্যন্ত ঋণের ক্ষেত্রে এই অতিরিক্ত সুদের খরচ বহন করবে কেন্দ্র। কিন্তু শীর্ষ আদালত কেন্দ্রের এই বক্তব্য সন্তুষ্ট নয়। গত সোমবার সুপ্রিম কোর্ট, কেন্দ্রকে আরও একবার এ নিয়ে হলফনামা জমা দিতে বলে। এবার ইএমআইয়ের সুদ মকুব করার পাশাপাশি হাউজিং সেক্টরকে স্বস্তি দেওয়া সম্ভব কিনা, সেটাও জানতে চায় শীর্ষ আদালত। শুক্রবার আদালতে এই সংক্রান্ত হলফনামা পেশ করেছে সর্বোচ্চ আদালত। আর তাতে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, কেন্দ্রের পক্ষের এরপর আর কোনও ক্ষেত্রকে আলাদা করে সাহায্য করা সম্ভব নয়।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement