BREAKING NEWS

১২ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

টিকিট বাতিলের টাকা ফেরত দিতে বাধ্য বিমান সংস্থাগুলি, নির্দেশ DGCA’র

Published by: Subhamay Mandal |    Posted: April 16, 2020 5:41 pm|    Updated: April 16, 2020 5:41 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: লকডাউনের দ্বিতীয় পর্বে ৩ মে রাত ১১.৫৯ পর্যন্ত সমস্ত আন্তর্জাতিক ও অন্তর্দেশীয় বিমান পরিষেবা বাতিল করেছে বিমান সংস্থাগুলি। কিন্তু ৩ মে পর্যন্ত বুকিং করা সমস্ত টিকিটের টাকা ‘ক্রেডিট শেল’-এ রেখে দেওয়ার কথা জানিয়েছিল বিমান সংস্থাগুলি। এ নিয়ে যাত্রীদের মধ্যে ক্ষোভের বাতাবরণ তৈরি হয়েছিল। বৃহস্পতিবার ডিরেক্টরেট জেনারেল অফ সিভিল এভিয়েশন (DGCA) নির্দেশ দিয়েছে, যাত্রীরা দাবি করলে টিকিট বাতিলের টাকা ফেরত দিতে বাধ্য বিমান সংস্থাগুলি। তিন সপ্তাহের মধ্যে বুকিং বাতিলের টাকা ফেরত দিতে হবে বলে নির্দেশ দিয়েছে DGCA।

জানা গিয়েছে, লকডাউনের প্রথম পর্ব অর্থাৎ ২৫ মার্চ থেকে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত সময়ের মধ্যে বুকিং করা সমস্ত টিকিটের টাকা ফেরত দিতে হবে। বস্তুত, সাধারণ যাত্রী থেকে শুরু করে অনেক ট্রাভেল এজেন্সি টিকিটের টাকা ফেরত নিয়ে বিমান সংস্থাগুলির সিদ্ধান্তে ক্ষোভ প্রকাশ করে। বিমান সংস্থাগুলি টিকিটের টাকা ফেরতের বদলে ‘ক্রেডিট শেল’-এর মাধ্যমে বুকিং রিশিডিউল করার কথা জানায়। তাই নিয়ে ক্ষোভের বাতাবরণ তৈরি হয়। ভারতে ২২ মার্চ থেকে সমস্ত আন্তর্জাতিক এবং ২৫ মার্চ থেকে সমস্ত অন্তর্দেশীয় বিমান পরিষেবা বন্ধ হয়ে যায়। প্রসঙ্গত, এয়ার ইন্ডিয়া ছাড়া বাকি সমস্ত বেসরকারি বিমান সংস্থাগুলি ১৪ এপ্রিলের পর থেকে টিকিট বুকিং নিয়েছে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী মঙ্গলবার সকালে লকডাউনের মেয়াদ ৩ মে পর্যন্ত বাড়িয়ে দেওয়ার কথা ঘোষণা করতেই ডিজিসিএ ওই সময় পর্যন্ত সমস্ত আন্তর্জাতিক ও অন্তর্দেশীয় বিমান পরিষেবা বাতিল করেছে।

[আরও পড়ুন: ১৬৭ বছরে এই প্রথম, লকডাউনের জেরে নজিরবিহীনভাবে জন্মদিনে থমকে রেলের চাকা]

জানা গিয়েছে, বেসরকারি বিমান সংস্থাগুলি আগে জানিয়েছিল টিকিটের টাকা তারা ফেরত না দিয়ে বরং অতিরিক্ত চার্জ ছাড়া পরবর্তী কোনও সময়ে বুকিংয়ের সুবিধা দেবে যাত্রীদের। তবে ভাড়া পরিবর্তনের ক্ষেত্রে অতিরিক্ত টাকা দিতে হতে পারে যাত্রীদের। তবে এদিন ডিজিসিএ নির্দেশ দিয়েছে, যাত্রীরা চাইলে টিকিট বাতিলের টাকা ফেরত দিতে হবে বিমান সংস্থাগুলি।

[আরও পড়ুন: ধর্মের ভিত্তিতে রোগীদের আলাদা ওয়ার্ড! ‘গুজব’ বলে ওড়াল গুজরাট প্রশাসন]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement