৪ শ্রাবণ  ১৪২৬  শনিবার ২০ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কিছুদিন আগে স্বস্তির নিঃশ্বাস নিয়েছিল গুজরাটবাসী। রাজ্যের উপকূলে হালকা ঝাপটা দিয়ে ফের সমুদ্রে ফিরে গিয়েছিল ঘূর্ণিঝড় বায়ু। কিন্তু ঘূর্ণিঝড় বোধহয় মতিস্থির করে উঠতে পারছে না। তাই আবার গুজরাটের দিকে ধেয়ে আসছে বায়ু। ১৭ থেকে ১৮ জুনের মধ্যে গুজরাটের কচ্ছ উপকূলে আছড়ে পড়ার কথা রয়েছে এই ঘূর্ণিঝড়টির।

শনিবার সকালে মৌসম ভবনের তরফে একথা জানানো হয়েছে। আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে খবর, উত্তর-পূর্ব ও পূর্ব-মধ্য আরব সাগরের দিকে সরে আসছে ঘূর্ণিঝড় বায়ু। রবিবারের মধ্যে এটি আরও শক্তি সঞ্চয় করবে। গুজরাটের পোরবন্দর, দেবভূমি দ্বারকায় ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানবে বলে পূর্বাভাস। এই জায়গাগুলির উপর দিয়ে ঘণ্টায় ৫০ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে বইবে ঝোড়ো হাওয়া। তবে হাওয়ার গতিবেগ ঘণ্টায় ৭০ কিলোমিটারও হতে পারে। গির সোমনাথ ও জুনাগড় জেলার উপর দিয়ে ঘণ্টায় ৩০-৫০ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বইবে।

[ আরও পড়ুন: তান্ত্রিকের সঙ্গে যৌন মিলনের প্রস্তাব স্বামীর! প্রতিবাদ করে খুন স্ত্রী ]

এখন পোরবন্দর থেকে প্রায় ২৬০ কিলোমিটার পশ্চিম-দক্ষিণপশ্চিমে, ভারাভাল থেকে ৩১০ কিলোমিটার পশ্চিমে ও দিউ থেকে ৩৬০ কিলোমিটার পশ্চিমে অবস্থান করছে ঘূর্ণিঝড়টি। ১৭ থেকে ১৮ জুনের মধ্য কচ্ছ উপকূলে আছড়ে পড়তে পারে ঘূর্ণিঝড় বায়ু। কিন্তু তার আগে ১৬ জুন রবিবার ঘূর্ণিঝড়টি আরও শক্তি সঞ্চয় করবে। এর বেগ থাকবে ঘণ্টায় ৮০-৯০ কিলোমিটার। কিন্তু স্থলভাগের দিকে যত এগোতে থাকবে, তত শক্তি হারাবে বায়ু। ঘূর্ণিঝড়ের কারণে গুজরাটে আগে থেকেই জারি ছিল সতর্কতা। তা তুলে নেওয়া হয়নি। বরং আরও বাড়ানো হয়েছে। ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে সমস্ত ব্যবস্থা নিচ্ছে প্রশাসন।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার বিকেলে সৌরাষ্ট্র উপকূলে আছড়ে পড়ার কথা ছিল ঘূর্ণিঝড় বায়ুর। কিন্তু আচমকাই নিজের দিক পরিবর্তন করে ঘূর্ণিঝড়টি। তবে গুজরাটের উপর থেকে বায়ু সরে গেলেও ভারী বর্ষণ হবে বলে জানায় আবহাওয়া দপ্তর। জানা যায়, বেরাবল, পোরবন্দর, দ্বারকার গা ঘেঁষে চলে যাবে বায়ু। ঘূর্ণিঝড়টি ক্রমশ সরে যাবে সমুদ্রের দিকে। পূর্বাভাস অনুযায়ী সমুদ্রের দিকে সরেও যায়। কিন্তু আবার ফিরে আসে ঘূর্ণিঝড় বায়ু। ফের গুজরাটেরই ঘাড়ের উপর নিঃশ্বাস ফেলছে প্রাকৃতিক বিপর্যয়।

[ আরও পড়ুন: ছুটি চেয়ে হেনস্তার শিকার, হরিয়ানায় আত্মঘাতী চিকিৎসক ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং