১ আশ্বিন  ১৪২৬  বৃহস্পতিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কিছুতেই মৃত্যুমিছিল থামছে না বিহারে। এনসেফালাইটিসে শিশুমৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১১। এবার এতগুলি মৃত্যুর জন্য দায়ী করে একটি জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা হয়েছে বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের ও কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধনের বিরুদ্ধে।

[আরও পড়ুন: দুর্নীতিগ্রস্তদের ঠাঁই নেই, কেন্দ্রের কোপে আরও ১৫ জন কর আধিকারিক]

বিহারে ক্রমেই আরও ভয়াবহ আকার নিচ্ছে মারণ এনসেফালাইটিস। এখনও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যা তিন শতাধিক। আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। এভাবে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বেড়ে চলায় প্রবল সমালোচনার মুখে পড়েছে নীতীশ সরকার। প্রায় ২০ দিন হল রোগের প্রাদুর্ভাব শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার প্রথম আক্রান্তদের দেখতে মুজফ্ফরপুরে আসেন মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ। রাজধানী পাটনা থেকে ৭০ কিলোমিটার আসতে মুখ্যমন্ত্রীর কেন ২০ দিন সময় লাগল তা নিয়ে এদিন প্রশ্ন তোলেন রোগীর আত্মীয়রা। মুজফফরপুরের শ্রীকৃষ্ণ মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের সামনে রোগীর পরিজনেরা মুখ্যমন্ত্রী ফিরে যান বলে স্লোগান দিতে থাকেন। তাঁরা অভিযোগ করেন, স্বাস্থ্য দপ্তরের গাফিলতিতেই এতগুলি শিশুর প্রাণ গিয়েছে। সময়মতো চিকিৎসা পরিষেবা না মেলার কারণেই রোগ ছড়িয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ, উপমুখ্যমন্ত্রী সুশীলকুমার মোদি, স্থানীয় বিধায়ক সুরেশ শর্মা শ্রীকৃষ্ণ মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতাল পরিদর্শন করেন। কথা বলেন রোগীর আত্মীয় ও চিকিৎসকদের সঙ্গে। আক্রান্তদের উন্নতমানের চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়ার জন্য চিকিৎসকদের অনুরোধ করেন মুখ্যমন্ত্রী। বেশ কয়েকজন রোগীর কাছে গিয়েও তাঁদের স্বাস্থ্য সম্পর্কে খোঁজ নেন তিনি। বিহারে এনসেফেলাইটিস নিয়ে ইতিমধ্যেই রাজনৈতিক কাজিয়া শুরু হয়েছে। রাজ্যের বিরোধী শিবিরের অভিযোগ, নীতীশ সরকার পরিস্থিতি সামাল দিতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীর উচিত এই ব্যর্থতার দায় স্বীকার করে সরে যাওয়া। এরই মধ্যে বিহারের স্বাস্থ্যমন্ত্রী মঙ্গল পাণ্ডের এক বক্তব্য নতুন করে বিতর্ক তৈরি হয়েছে।

কংগ্রেসও এদিন এনসেফেলাইটিস নিয়ে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হর্ষ বর্ধনের সমালোচনা করেছে। কংগ্রেসের মুখপাত্র রণদীপ সূরজেওয়ালা এদিন বলেছেন, “হর্ষ বর্ধন শুধুই বড় বড় কথা বলেন। কাজের কাজ কিছুই করেন না। এর আগে ২০১৪ সালে মুজফফরপুরে এনসেফেলাইটিসে আক্রান্ত হয়ে ১৩৯টি শিশুর মৃতু্য হয়েছিল। সেবারও একই কথা বলেছিলেন হর্ষ বর্ধন। এবারও সেই একই কথার পুনরাবৃত্তি করছেন তিনি। আসলে কাজ না করে শুধুই মানুষকে ধোঁকা দেওয়ার চেষ্টা চলছে।”

[আরও পড়ুন: ‘কটা উইকেট পড়ল?’, শিশুমৃত্যু নিয়ে বৈঠকে বিতর্কিত প্রশ্ন বিহারের স্বাস্থ্যমন্ত্রীর]

 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং