১৩ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  সোমবার ৩০ নভেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বিজেপির হয়ে প্রচারের অভিযোগ, বিতর্কে জড়িয়ে ফেসবুক ছাড়লেন আঁখি দাস

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: October 27, 2020 8:35 pm|    Updated: October 27, 2020 10:14 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ফেসবুক (Facebook) ছাড়লেন সংস্থাটির ভারতীয় শাখার অন্যতম শীর্ষ আধিকারিক আঁখি দাস। ভারতে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে ফেসবুকে বিজেপির সমর্থনে প্রচার করা ও বিদ্বেষ ছড়ানো কনটেন্ট ব্লক করার ক্ষেত্রে তাঁর বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ ছিল। বিতর্কের কেন্দ্রে ছিলেন তিনি। তার জেরে শেষ পর্যন্ত মঙ্গলবার ইস্তফা দিলেন আঁখি।

[আরও পড়ুন: ‘দুর্নীতি উন্নয়নের ক্ষতি করে’, দায়বদ্ধ ও স্বচ্ছ প্রশাসন তৈরির আহ্বান মোদির]

ফেসবুকের তরফে পাঠানো এক ইমেল বিবৃতিতে বলা হয়েছে, জনসেবার প্রতি আগ্রহ আছে আঁখির। সে ব্যাপারেই নিজেকে নিয়োজিত করতে ফেসবুকের দায়িত্ব পালনে অব্যাহতি নিয়েছেন তিনি। এর জেরেই সংস্থা থেকে ইস্তফা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। ভারতে ফেসবুকের সবচেয়ে পুরনো কর্মীদের অন্যতম ছিলেন তিনি। গত ৯ বছর ধরে কোম্পানির সম্প্রসারণ ও তার পরিষেবা ছড়িয়ে দেওয়ায় বিরাট ভূমিকা পালন করেছিলেন তিনি। বিরাট অবদান রেখেছেন তিনি। তাঁর প্রতি আমরা কৃতজ্ঞ, তাঁর উজ্জ্বল ভবিষ্যতের জন্য শুভেচ্ছা রইল। বিবৃতিটি প্রকাশ করেছেন ফেসবুকের ইন্ডিয়া ডিরেক্টর অজিত মোহন।

উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগে আঁখি দাসের বিরুদ্ধে ছত্তিশগড়ে অভিযোগ দায়ের করেছিলেন এক সাংবাদিক। তাঁর বিরুদ্ধে বিশেষ সম্প্রদায়ের আবেগকে অসম্মান করার অভিযোগ রয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে সরব হয় বিরোধী দলগুলিও। পালটা তাঁকে খুনের হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে সরব হয়েছেন আঁখিও। এমনকী, দিল্লি পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগও দায়ের করেছেন তিনি। ভারতে ফেসবুকে বিজেপি নেতাদের বিদ্বেষমূলক মন্তব্য ছড়াতে বকলমে সাহায্য করেছেন মহিলা আধিকারিক। মার্কিন মিডিয়ায় এই প্রতিবেদন প্রকাশের পর থেকে সমালোচনার কেন্দ্রে রয়েছেন আঁখি।

[আরও পড়ুন: কাশ্মীর ও লাদাখে জমি কিনতে পারবেন অন্য রাজ্যের বাসিন্দারাও, বিজ্ঞপ্তি জারি কেন্দ্রের]

এদিকে, ফেসবুক ইন্ডিয়ার অধিকর্তা আঁখি দাসের পদত্যাগের ঘটনাকে তাদের জয় হিসাবেই দেখছে। পার্টির অভযোগের ভিত্তিতেই আঁখি দাসের ওপর ফেসবুক কতৃপক্ষ চাপ বাড়াচ্ছিল বলে খবর। ফেসবুক ইন্ডিয়ার অধিকর্তার সঙ্গে কেন্দ্র ও রাজে্যর শাসকদলের সখ্যতার খবর সিপিএমের মুখপত্রেই প্রথম প্রকাশিত হয়। তারপরেই পার্টির তরফে ফেসবুক কতৃপক্ষের কাছে তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ জানানো হয়। 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement