BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

প্রয়াত প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অর্জুন চরণ শেঠি, শোকস্তব্ধ রাজনৈতিক মহল

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: June 9, 2020 8:53 am|    Updated: June 9, 2020 9:23 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রবিবার রাতে শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও আট বারের সাংসদ অর্জুন চরণ শেঠি (Arjun Charan Shethi)। ৭৯ বছর বয়সে জীবনাবসান হয় তাঁর। বয়সজনিত শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে ওড়িশার একটি হাসপাতালের ভরতি ছিলেন তিনি। তাঁর মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করেন ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়ক-সহ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরা।

চলে গেলেন ভদ্রক থেকে আট বারের জয়ী দুঁদে সাংসদ অর্জুন চরণ শেঠি। জানা যায়, বয়সজনিত শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে রবিবার রাতে তাঁকে ওড়িশার একটি হাসপাতালের ভরতি করা হয়। এরপরই সোমবার, মাত্র ৭৯ বছর বয়সে জীবনাবসান হয় তাঁর। অর্জুন চরণ শেঠির রাজনৈতিক জীবনে হাতেখড়ি সেই কলেজ থেকে। মৃদুভাষী এই মানুষটি আজীবন নিজেকে ব্যস্ত রেখেছিলেন সমাজ সেবামূলক কাজে। সাফল্য পেয়েছিলেন রাজনৈতিক জীবনেও। কেন্দ্রের মন্ত্রকও সামলেছেন তিনি। ওড়িশা বিধানসভাতেও দু-বার জয়ী হয়েছিলেন। ২০০০ সাল থেকে ২০০৪ পর্যন্ত এনডিএ সরকারের শাসনকালে কেন্দ্রীয় জলসম্পদ মন্ত্রকের দায়িত্বে আসীন ছিলেন অর্জুন। সেই সময় প্রধানমন্ত্রী পদে ছিলেন অটল বিহারী বাজপেয়ী।

[আরও পড়ুন:নিরাপত্তারক্ষীদের খবর দেওয়ার ফল! কাশ্মীরে কংগ্রেস নেতাকে খুন করল জঙ্গিরা]

অর্জুন চরণ শেঠির জন্ম ১৯৪১ সালের ১৮ সেপ্টম্বর। কংগ্রেস প্রার্থী হিসেবে ১৯৭১ ও ১৯৮০ সালে ভদ্রক কেন্দ্র থেকে জয়ী হন। একই লোকসভা কেন্দ্র থেকে ১৯৯১ সালে জনতা দলের টিকিটে জয়ী হন। এর পর বিজু জনতা দল (বিজেডি)-এর প্রতীকে ১৯৯৮, ১৯৯৯, ২০০৪ ও ২০০৯ সালে জয়ী হয়েছেন। ২০১৯ সালের ওডিশা বিধানসভা নির্বাচনের সময় বিজেডি ছেড়ে প্রবীণ এই রাজনীতিক ছেলে অভিমন্যু শেঠিকে সঙ্গে নিয়ে বিজেপিতে যোগ দেন।

[আরও পড়ুন:রাজস্থানে গ্রেপ্তার ২ ISI চর, সেনাঘাঁটির গোপন তথ্য ফাঁসের আশঙ্কা]

প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর মৃত্যুতে এদিন গভীর শোকপ্রকাশ করেন ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পটনায়েক। তাঁর পরিবারের প্রতি সমবেদনাও জানান মুখ্যমন্ত্রী। প্রয়াত প্রবীণ এই সাংসদকে ‘দক্ষ প্রশাসক’ হিসেবে উল্লেখ করেন ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়ক। ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “দীর্ঘসময় ধরে সাংসদ ও বিধায়ক থাকার সময় নিজের প্রতিশ্রুতি পূরণে নিবেদিত প্রাণ এই মানুষটি জনগণের সেবা করে গিয়েছেন। অর্জুনের মৃত্যুতে ওড়িশা একজন উচ্চমানের রাজনীতিককে হারাল!” কেন্দ্রীয় পেট্রোলিয়াম ও ইস্পাত মন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধানও তাঁর মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করেন। ওডিশা বিধানসভার বিরোধী নেতা প্রদীপ্তকুমার নায়েক ও রাজ্য বিজেপির সভাপতি সমীর মহান্তির কথায়, “অর্জুনের মৃত্যু যে শূন্যতা তৈরি করল, তা পূরণ হওয়া কঠিন।” প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শ্রীকান্ত জেনা শোকপ্রকাশ করে বলেন, “ওনার জনপ্রিয়তা কেবল ভদ্রকের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল না। গোটা ওড়িশায় তিনি জনপ্রিয় ছিলেন।”

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement