BREAKING NEWS

১৫ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  বুধবার ২ ডিসেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বেনজির, করোনা টিকার ট্রায়ালের জন্য স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে এগিয়ে এলেন হরিয়ানার মন্ত্রী

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: November 18, 2020 5:39 pm|    Updated: November 18, 2020 5:41 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: এমনিতে তিনি বরাবর সংবাদের শিরোনামে থাকেন বিতর্কিত মন্তব্যের জন্য। হরিয়ানায় বিজেপির অন্দরে অশান্তি বাঁধানোর জন্যও নামডাক আছে তাঁর। কিন্তু এবার হরিয়ানার মন্ত্রী অনিল ভিজ (Anil Vij) যে কারণে শিরোনামে এলেন, তা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। সম্পূর্ণ দেশীয় পদ্ধতিতে তৈরি করোনা ভাইরাসের টিকা কোভ্যাক্সিনের (Covaxin) ট্রায়ালের জন্য স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে এগিয়ে এলেন হরিয়ানার মন্ত্রী। এমনিতেই অপরীক্ষিত কোনও ভ্যাকসিনের ডোজ নেওয়াটা বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। কারণ, এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বিপজ্জনক হতে পারে। ষাটোর্ধ ভিজের জন্য সেই ঝুঁকি আরও বেশি। তবে সেসবের তোয়াক্কা না করেই অনিল ভিজ জানিয়ে দিলেন, কোভ্যাক্সিনের তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালে শরিক হতে চান তিনি।

বুধবার এক টুইটে হরিয়ানার মন্ত্রী জানান,”আগামী ২০ নভেম্বর থেকে হরিয়ানায় ভারত বায়োটেকের (Bharat Biotech) তৈরি করোনার ভ্যাকসিন কোভ্যাক্সিনের তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল শুরু হচ্ছে। এবং আমি নিজে এই ট্রায়ালের প্রথম স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে টিকার ডোজ নিতে চাই।” একজন মন্ত্রী হয়ে যেভাবে ভ্যাকসিনের ট্রায়ালের জন্য ভিজ এগিয়ে এসেছেন তা মন জিতেছে নেটদুনিয়ার একাংশের। এর আগে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ঘোষণা করেছিলেন, রাশিয়ায় তৈরি ভ্যাকসিন স্পুটনিক ফাইভের ডোজ প্রথমে দেওয়া হয়েছে তাঁর নিজের মেয়েকে। বস্তুত, এর আগে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এই ধরনের নজির থাকলেও এদেশ তা নেই। আর সেকারণেই প্রশংসা কুড়চ্ছেন ভিজ।

[আরও পড়ুন: ‘মানুষের মনোবল ভেঙে যাচ্ছে, এটা বিকাশ না বিনাশ?’ আবারও কেন্দ্রকে তোপ রাহুলের]

৬৭ বছরের ভিজ মন্ত্রীপদ পাওয়ার পর থেকেই একাধিক বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে সংবাদের শিরোনামে থেকেছেন। মহাত্মা গান্ধীর সঙ্গে ‘মোদি ব্র্যান্ডে’র তুলনা, গোমাংস খেলে হরিয়ানায় প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা, লাভ জিহাদ নিয়ে হুঁশিয়ারি ইত্যাদি নানাবিধ মন্তব্যে রাতারাতি নামডাক হয়ে গিয়েছিল তাঁর। হরিয়ানা বিজেপিতে হিন্দুত্বের আইকন হিসেবেও পরিচিত অনিল। কিন্তু এবার তিনি মন দিলেন ‘সত্যিকারে’র সমাজসেবায়। যদিও আদৌ তাঁকে এই ভ্যাকসিনের ডোজ দেওয়া হবে কিনা, সেটা ঠিক করবেন চিকিৎসকরাই।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement