BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘টাকা নেই, বিনামূল্যের খাবারই ভরসা গরিবদের’, কেন্দ্রকে কটাক্ষ চিদম্বরমের

Published by: Paramita Paul |    Posted: April 19, 2020 3:52 pm|    Updated: April 19, 2020 3:52 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মহামারি রুখতে লকডাউনের মেয়াদ বেড়েছে। বেড়েছে কড়াকড়িও। ফলে প্রায় স্তব্ধ অর্থনৈতিক কাজকর্ম। কাজহারা বহু মানুষ। কারোর পুঁজিতে হাত পড়েছে তো কারোর আবার ভাঁড়রে রসদই নেই। তাঁদের একান্ত ভরসা বিনামূল্যে বিতরিত রান্না করা খাবার। আর তাই পেতে লাইন দিচ্ছেন দেশের মানুষ। আর ঠিক এই জায়গাতেই আপত্তি জানিয়েছেন দেশের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরম। তাঁর কথায়, “দেশের গরিবদের সম্মান বজায় রাখতে ব্যর্থ কেন্দ্র সরকার।” তাঁদের এমন করুণ পরিস্থিতি দেখেও ‘হাত গুটিয়ে বসে থাকতে’ দেখে সরকারকে ‘হৃদয়হীন’ বলেও কটাক্ষ করেন তিনি।

[আরও পড়ুন : মহারাষ্ট্রে কোয়ারেন্টাইন থেকে বেরোনোর পরেই গ্রেপ্তার তবলিঘি জামাতের ২৯ জন সদস্য]

রবিবার সকালে টুইটার হ্যান্ডেলে চিদম্বরম লেখেন,”মানুষের হাতে যে টাকা নেই তার একাধিক প্রমাণ মিলেছে। তাঁরা কার্যত বাধ্য হয়ে বিনামূল্যে খাবারের জন্য লাইনে দাঁড়িয়েছেন। এমন অবস্থা দেখে একমাত্র কোনও হৃদয়হীন সরকারই এভাবে নিষ্ক্রিয় থাকতে পারে।” প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামনকে ট্যাগ করে ‘অর্থনৈতিক ও নীতিগত’ দু’টি প্রশ্ন করেন চিদম্বরম। প্রথম প্রশ্নে দরিদ্র পরিবারগুলিকে টাকা সরবরাহ করতে না পারার ব্যর্থতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন চিদাম্বরম। দ্বিতীয় প্রশ্নে সরকারের খাদ্যশস্য সরবরাহকে কাঠগড়ায় তোলেন। এ নিয়ে চিদাম্বরম লেখেন, “কেন সরকার ওঁদের খিদের হাত থেকে বাঁচাতে পারল না। কেন অর্থের জোগান দিয়ে প্রতিটি দরিদ্র পরিবারের সম্মান রক্ষা করতে পারল না? কেন সরকার বিনামূল্যে ৭.৭ কোটি টন খাদ্যশস্যের একটা ছোট অংশ বিনামূল্যে সরবরাহ করতে পারল না সেই সব পরিবারকে, যাদের ওই শস্যের একান্ত দরকার ছিল?”

[আরও পড়ুন : পরিযায়ী শ্রমিকদের উপর জীবানুনাশক স্প্রে! যোগী প্রশাসনকে খোঁচা স্বাস্থ্যমন্ত্রকের]

প্রসঙ্গত, এই বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ বিভিন্ন সময় কেন্দ্রের একাধিক ভূমিকার সমালোচনায় সরব হয়েছেন। এবারও করোনা মোকাবিলা, পরিযায়ী শ্রমিকদের অন্নের জোগানে কেন্দ্রের ভূমিকার তীব্র নিন্দা করেছেন তিনি। এর আগে ৩ মে পর্যন্ত লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানোর পরে চিদাম্বরম একটি টুইটে লিখেছিলেন, “কাঁদো আমার প্রিয় দেশ।” 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement