BREAKING NEWS

১৬ অগ্রহায়ণ  ১৪২৯  শনিবার ৩ ডিসেম্বর ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

পরিযায়ী শ্রমিকদের উপর জীবানুনাশক স্প্রে! যোগী প্রশাসনকে খোঁচা স্বাস্থ্যমন্ত্রকের

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: April 19, 2020 3:26 pm|    Updated: April 19, 2020 3:26 pm

Disinfact spraying harmful to pshychologicaly anf physically

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: যোগী রাজ্যে পরিযায়ী শ্রমিকদের উপরে জীবানুনাশক স্প্রে করার ঘটনাকে তীব্র নিন্দা করেছে কেন্ত্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। মানুষের শরীরের জন্য এই জীবানুনাশক  স্প্রে অত্যন্ত ক্ষতিকারক বলেই দাবি করে অ্যাডভাইজারি  (advisory ) জারি করে স্বাস্থ্যমন্ত্রক।  এমনকি এি ঘটনার জন্য যোগী সরকারকে খোঁচাও দেয় কেন্দ্রীয় মন্ত্রক।

গত মাসেই একটি হৃদয় বিদারক চিত্র দেখা যায় যোগী রাজ্যে। ভিন রাজ্য থেকে নিয়ে যাওয়া পরিযায়ী শ্রমিক-সহ মহিলা ও শিশুদের রাস্তায় বসিয়ে, গায়ে জীবানুনাশক স্প্রে করা হচ্ছে। সেই ঘটনার তীব্র নিন্দা করে শ্রমিকদের গায়ে জীবানুনাশক স্প্রে করাকে তীব্র নিন্দা করে কেন্ত্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। এতে পরিযায়ী শ্রমিকদের শারীরিক ও মানসিক ক্ষতির সম্ভাবনা প্রবল। বৈজ্ঞানিকভাবে এটা পরীক্ষিতও নয় যে, জীবানুনাশক স্প্রে করলে তাঁরা সংক্রমণ মুক্ত হবেন। পরিবর্তে এই পদ্ধতিতে তাঁদের শরীরের ভিতরে কোনওভাবে জীবাণু প্রবেশ করার সম্ভাবনা প্রবল হতে পারে।

[আরও পড়ুন:মহারাষ্ট্রে কোয়ারেন্টাইন থেকে বেরোনোর পরেই গ্রেপ্তার তবলিঘি জামাতের ২৯ জন সদস্য]

স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানায়, “যোগী সরকারের রাজ্যে পরিযায়ী শ্রমিকদের সঙ্গে হওয়া এই ঘটনা কতটা যুক্তিযুক্ত সই বিষয় প্রশ্ন ওঠে। আদপেও সোডিয়াম হাইপোক্লোরাইট (sodium hypochlorite) জীবানুনাশক হিসেবে স্প্রে করা সঠিক কিনা সেই বিষেয় অনেকে জিজ্ঞাসা করেন। তবে এই পুরো কাজটি করা হয়েছিল সংবাদ মাধ্যমের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য। সোডিয়াম হাইপোক্লোরাইট-এর মত আরও রাসায়নিক যা জীবানুনাশক হিসেবে কাজ করে তা কোথাও স্প্রে করলে সেই স্থান জীবানুমুক্ত হয় সেটা ঠিক। কিন্তু তা ব্যবহার করা হয় রাস্তা-ঘাট, কোনও হাসপাতালকে জীবানুমুক্ত করতে। এমনকি কোনও সংক্রমিত ব্যক্তি যেই স্থানগুলিকে স্পর্শ করছেন সেই স্থানগুলিতেও জীবানুনাশক স্প্রে করা যেতে পারে। কিন্তু মানুষে গায়ে তা স্প্রে করা উচিত নয়।”

[আরও পড়ুন:দিল্লিতে করোনায় মৃত ৪৫ দিনের শিশু, শোকে কাতর পরিবার]

স্বাস্থ্যমন্ত্রক আর ও জানায়, “কোনও গোষ্ঠী বা বিশেষ কোনও ধর্মের মানুষের গায়ে এই স্প্রে করার অনুমতি দেওয়া হয়নি। এই ধরণের স্প্রে কার হলে তাঁদের শারীরিক ও মানুষেরভাবে ক্ষতির আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে।” এই ধরণের স্প্রে করলে ব্যক্তিদের চোখের ও ত্বকের নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে। আর কোনও রকমভাবে এই রাসায়নিক যদি ব্যক্তির শরীরের ভিতর চলে যায় তাহলে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে ব্যক্তির অগ্নাশয়, শ্বাসনালি। ফলে ব্যক্তির শ্বাসকষ্টও শুরু হতে পারে। তাই ভবিষ্যতে এই ধরণের জীবানুনাসক ব্যবহার না করে মানুষের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করা ও তাদের বারবার হাত ধোয়া, মাস্ক পরারই পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে