৮ ফাল্গুন  ১৪২৬  শুক্রবার ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: একেই বলে মরার উপর খাঁড়ার ঘা! অর্থনীতির বেহাল দশা, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে দেশজুড়ে প্রতিবাদ-বিক্ষোভের মধ্যেই খারাপ খবর ভারতের জন্য। দ্বিতীয় মোদি সরকারের অস্বস্তি বাড়াল বিশ্ব গণতন্ত্র সূচক। ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের সমীক্ষায় বিশ্ব গণতন্ত্র সূচকে ১০ ধাপ নিচে নামল ভারত। দেশের নাগরিক স্বাধীনতার অধিকার খর্বই এর মূল কারণ।

দ্য ইকোনমিস্ট গ্রুপের অন্তর্গত ইআইইউ বিশ্ব গণতন্ত্র সূচক তৈরি করেছে। সেখানে ১০ ধাপ নিচে নেমে ভারতের স্থান এখন ৫১ নম্বরে। এই সমীক্ষা দেশের বহুত্ববাদ, সরকারের উন্নয়নমূলক কাজকর্ম, রাজনৈতিক অংশগ্রহণ, সংস্কৃতি ও নাগরিক অধিকারের উপর ভিত্তি করে হয়। ২০০৬ সালে প্রথম রিপোর্ট পেশ করে সংস্থা। ২০১৭ সালে ভারতের স্কোর ছিল ১০-এর মধ্যে ৭.২৩। এবার সেটা কমে হয়েছে ১০-এর মধ্যে ৬.৯। বিশ্ব গণতন্ত্রে সূচকে গড় হল ১০-এ ৫.৪৪। ভারতের স্কোর দেখেই বোঝা যাচ্ছে, বিশ্বের বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশে স্বৈরাচারী শাসন চলছে।

[আরও পড়ুন: ‘দাড়িওয়ালার সঙ্গে বিতর্কে বসুন’, CAA নিয়ে অমিত শাহকে আহ্বান ওয়েইসির]

রিপোর্ট অনুযায়ী, গণতন্ত্র সূচকে ভারতের ১০ ধাপ নিচে নামার অন্যতম প্রধান কারণ, দেশে নাগরিক স্বাধীনতা খর্ব হয়েছে। গত বছর ডিসেম্বরে সংসদে পাশ হওয়ার পর আইনে পরিণত হয়েছে সংশোধিত নাগরিকত্ব বিল। এর ফলে ২০২০ সালের সূচকে আরও নিচে নামবে ভারত। এই রিপোর্টে উল্লেখ রয়েছে, কাশ্মীরে অনুচ্ছেদ ৩৭০ বিলোপের পর রাজ্যের তিন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ৫ মাস যাবৎ গৃহবন্দি রয়েছেন। তার সঙ্গে কাশ্মীরে ১৫০ দিনেরও বেশি ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ থাকা যোগ হয়েছে।

বিশ্ব গণতন্ত্র সূচকে সবার শীর্ষে রয়েছে নরওয়ে। তারপরেই স্থান আইসল্যান্ডের। তিনে ও চারে যথাক্রমে সুইডেন ও নিউজিল্যান্ড। তালিকার সবচেয়ে নিচে ১৬৭ নম্বরে রয়েছে কিম জং উনের উত্তর কোরিয়া। ১০৮ নম্বরে রয়েছে পাকিস্তান।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং