BREAKING NEWS

১৩ কার্তিক  ১৪২৭  শুক্রবার ৩০ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

ফাঁস দক্ষিণ ভারতের জঙ্গলে ISIS-এর ‘মুক্তাঞ্চল’ তৈরির ছক, চার্জশিট জমা NIA’র

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: October 3, 2020 10:02 am|    Updated: October 3, 2020 10:02 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে থাকা ইসলামিক স্টেট জঙ্গিদের বেশিরভাগ ঘাঁটিই ধ্বংস করা হয়েছে। সিরিয়াতেও কোণঠাসা হয়ে পড়েছে এই জঙ্গি গোষ্ঠীর সদস্যরা। এই পরিস্থিতির মধ্যে দাঁড়িয়ে এবার দক্ষিণ ভারতের গভীর জঙ্গলগুলিতে ঘাঁটি তৈরির পরিকল্পনা নিয়েছে আইএসআইএসের ভারতীয় শাখা আল হিন্দ জঙ্গি সংগঠন। সম্প্রতি এই জঙ্গি সংগঠনের ১৭ জন সদস্যের বিরুদ্ধে তৈরি করা চার্জশিটে এমন তথ্য তুলে ধরেছে জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা এনআইএ (NIA)।

ওই চার্জশিটে উল্লেখ করা হয়েছে, বেঙ্গালুরুর মেহবুব পাশা ও তামিলনাড়ুর কুড্ডালোরের খাজা মইদীনের নেতৃত্বে ২০ জন জঙ্গির একটি দল কর্ণাটক, তামিলনাড়ু, অন্ধ্রপ্রদেশ ও কেরলের গভীর জঙ্গলগুলিতে ২০১৯ থেকে ঘাঁটি তৈরির চেষ্টা চালাচ্ছে। এর জন্য পাশা ও মইদীন কুখ্যাত চন্দনদুস্য বীরাপ্পনের জীবন নিয়ে লেখা বইও কিনেছিল। কিন্তু, তাদের উদ্দেশ্য পূরণ হওয়ার আগেই গত ডিসেম্বর ও জানুয়ারি মাসে ২০ জনের মধ্যে ১৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর জানা যায়, তাদের ভয়ানক পরিকল্পনার কথা।

[আরও পড়ুন: ‘কতদিনে দেশের সবাই ভ্যাকসিন পাবেন বলা কঠিন’, সংশয়ের সুর এইমসের ডিরেক্টরের গলায় ]

ভারতে এই প্রথম এনআইএ বা কোনও তদন্তকারী সংস্থার তরফে আইএসআইএস (ISIS) জঙ্গিদের এই ধরনের ষড়যন্ত্রের পর্দাফাঁস করা হয়েছে বলেও প্রশাসন সূত্রে খবর। ওই চার্জশিটে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, ২০১৯ সালে মেহবুব পাশা আরও চার জন আইএসআইএস জঙ্গিকে নিয়ে কর্ণাটকের শিবসমুদ্র এলাকার জঙ্গলে গিয়ে ঘাঁটি তৈরির উপযুক্ত জায়গার সন্ধান চালায়। যেখানে গোপন একটি ঘাঁটি তৈরি করে সমস্ত আল হিন্দ (Al-Hind) জঙ্গিদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করার পাশাপাশি ভারতে প্রথম ইসলামিক স্টেটের মুক্তাঞ্চল বানানোর ছক ছিল তাদের। এর জন্য তাঁবু, রেনকোট, স্লিপিং ব্যাগ. দড়ি, ল্যাডার, তিরধনুক, আগ্নেয়াস্ত্র, ছুরি, আগ্নেয়াস্ত্র ও কার্তুজ এবং জঙ্গলে ব্যবহারকারী জুতো-সহ শক্তিশালী আইডি বিস্ফোরক তৈরির সরঞ্জামও জোগাড় করেছিল।

জঙ্গি ঘাঁটির তৈরি উপযুক্ত জায়গার সন্ধানে আল হিন্দের সদস্যরা কর্ণাটকের কোলার ও কোডাগু-সহ একাধিক জায়গা, গুজরাটের জাম্মুসার, মহারাষ্ট্রের রত্নগিরি, অন্ধ্রপ্রদেশের চিত্তুর এমনকী পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান ও শিলিগুড়িতে খোঁজ চালিয়েছিল বলে জানা গিয়েছে।

[আরও পড়ুন: টলাতে পারেনি পুলিশি বাধা! আজ ফের হাথরাসের পথে রাহুল, যেতে পারেন অখিলেশও]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement