৩০ ভাদ্র  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বাস ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে মৃত্যু হল ১১ জনের। জখম হয়েছেন আরও ২৫ জন। সোমবার সকালে মর্মান্তিক এই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে ঝাড়খণ্ডের হাজারিবাগ জেলার ২ নম্বর জাতীয় সড়কের চৌপারণ এলাকায়। খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে পৌঁছে জখমদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করেন প্রশাসনের আধিকারিকরা।

[আরও পড়ুন- কলকাতা থেকে উড়ো ফোন, পাটনা বিমানবন্দর উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি]

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ২ নম্বর জাতীয় সড়কের উপর দিয়ে ১২০ কিলোমিটার গতিতে যাচ্ছিল ডবলডেকার বাসটি। হাজারিবাগের কিছুটা আগে উলটো দিক থেকে আসে একটি ট্রাকের সঙ্গে ধাক্কা লাগে বাসটির। নিয়ন্ত্রণ হারানো কারণেই মর্মান্তিক এই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে।

জখম এক যাত্রী সৌরভ কুমার বলেন, “বাসটি ১২০ কিলোমিটার বেগে যাচ্ছিল। আচমকা ব্রেক কাজ করছে না বলে চিৎকার করছিলেন বাসের চালক। তিনি বাসটি থামানোর আপ্রাণ চেষ্টা করলেও উলটোদিক থেকে আসা একটি ট্রাকের সঙ্গে ধাক্কা লেগে যায়। এর ফলে বাসের নিচের অংশ পুরোপুরি ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে গিয়েছে। পরে ওই অংশ ভেঙে আটকে পড়া যাত্রীদের বাইরে বের করে নিয়ে আসা হয়।”

[আরও পড়ুন- প্রধানমন্ত্রী মোদির জন্য পাকিস্তানের আকাশসীমা খোলার আবেদন ভারতের]

বাসটিতে থাকা অন্য এক যাত্রী বলেন, বাস চলছিল। হাজারিবাগের কিছুটা আগে কানে আসে ব্রেক কাজ করছে না বলে চিৎকার করছেন চালক। এরপর তিনি ও কন্ডাকটর বাসটি থামানোর অনেক চেষ্টা করেন। যদিও তা সম্ভব হয়নি।

এপ্রসঙ্গে হাজারিবাগের ডিএসপি মণীশ কুমার বলেন, “খবর পাওয়ার পরে জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ এবং আমরা গিয়ে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। গত ৬ মাসে ওই জায়গায় পথ দুর্ঘটনার ফলে ১৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে। সেই জন্য জায়গাটিকে অত্যন্ত বিপজ্জনক বলে চিহ্নিত করে তদন্তও শুরু হয়েছে। জখমদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাঁদের রাঁচি হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।”

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং