২৭ আশ্বিন  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৫ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দু’দেশের উত্তপ্ত সম্পর্কের মধ্যেই পাকিস্তানের আকাশসীমা ব্যবহার করার অনুমতি চাইল ভারত। পাক আকাশসীমা ব্যবহার করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিমান বিশকেক যেতে দিতে অনুরোধ করল ভারত। আগামী ১৩ জুন বিশকেকে সাংহাই কোঅপারেশন অর্গানাইজেশনের বৈঠকে যোগ দিতে যাওয়ার কথা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির। পাক আকাশসীমার উপর দিয়েই কিরগিজস্তানে যেতে চান মোদি।

[আরও পড়ুন: বায়ুসেনার বিমান অপহরণ করেছে ভিনগ্রহীরা, টিভি চ্যানেলের যুক্তিতে হতবাক নেটদুনিয়া]

উল্লেখ্য, বালাকোট এয়ারস্ট্রাইকের পর নিজেদের আকাশসীমার সব রুট বন্ধ করে দেয় পাকিস্তান। সেটা ছিল ২৬ ফেব্রুয়ারি। তারপর থেকে এখনও বন্ধ পাকিস্তানের অধিকাংশ এয়ার রুট। মোট ১১ টি রুটের মধ্যে ৯টি রুট এখনও বন্ধ। মাত্র ২টি রুট খোলা রয়েছে। দুটি রুটই দক্ষিণ পাকিস্তানের মধ্যে দিয়ে গিয়েছে। এই দুটি ছাড়া অন্য সব রুটে বাণিজ্যিক বিমান চলাচল এখনও বন্ধ। যার জেরে বেশ ভালমতোই ক্ষতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে বেসরকারি বিমানসংস্থাগুলিকে। যদিও, ভারতীয় বায়ুসেনা গত ৩১ মে জানিয়ে দিয়েছিল, পাকিস্তান সীমান্তে ভারতীয় বায়ুসীমাই যে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল তা তুলে নেওয়া হয়েছে। কিন্তু তাতেও পাকিস্তানের বায়ুসীমা বন্ধ থাকাই ভারতের বিমান সংস্থাগুলির খুব একটা উপকার হয়নি।ক্ষতির মুখে ইন্ডিগো, এয়ার ইন্ডিয়ার মতো সংস্থাগুলি।

[আরও পড়ুন: পোশাক খুলে নাচার দাবি-মহিলাদের মারধর, অসমে ইদের অনুষ্ঠান ঘিরে তুলকালাম]

এ প্রসঙ্গে উল্লেখ্য, বাণিজ্যিক বিমান বন্ধ থাকলেও গত ২১ মে পাকিস্তানের উপর দিয়ে তৎকালীন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের বিমান ওড়ার অনুমতি দিয়েছিল পাকিস্তান। সুষমাও সাংহাই কোঅপারেশন অর্গানাইজেশনের বিদেশমন্ত্রীদের বৈঠকে যোগ দিতে গিয়েছিলেন। এই পরিস্থিতিতে এবার মোদির বিমান যেতে দেওয়ার অনুরোধ করল ভারত। বিদেশমন্ত্রকের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, “আমরা পাকিস্তানকে অনুরোধ করেছি প্রধানমন্ত্রীর বিমান যেতে দেওয়ার জন্য। যে রুট দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বিমান যাবে, সেই রুট এখনও খোলেনি পাকিস্তান। প্রধানমন্ত্রীকে ১৩ এবং ১৪ জুন আয়োজিত হতে চলা সাংহাই কোঅপারেশন অর্গানাইজেশনের বৈঠকে যোগ দেওয়ার কথা।”

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং