৯ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

চাপের মুখে সিদ্ধান্ত বদল, ভিনরাজ্যের পরিযায়ী শ্রমিকদের বাড়ি পাঠাবে কর্ণাটক সরকার

Published by: Paramita Paul |    Posted: May 7, 2020 6:06 pm|    Updated: May 7, 2020 6:11 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: তীব্র সমালোচনার মুখে সিদ্ধান্ত বদল করল কর্ণাটক সরকার। জানিয়ে দিল, ৮ মে, শুক্রবার থেকে ফের দক্ষিণের এই রাজ্যে আটকে থাকা পরিযায়ী শ্রমিকদের নিজেদের রাজ্যে পাঠানো হবে। চলবে ‘শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন’ও। বৃহস্পতিবার এ বিষয়ে ন’টি রাজ্যের প্রশাসনকে চিঠি পাঠানো হয়। তাতে বলা হয়েছে, ৮ মে থেকে ১৫ মে-র মধ্যে সংশ্লিষ্ট রাজ্যের পরিযায়ী শ্রমিক, তীর্থযাত্রী, পর্যটক, পড়ুয়াদের ফিরিয়ে দেওয়া হবে। কর্ণাটক প্রশাসনের এক আধিকারিক জানান, “সংশ্লিষ্ট রাজ্যগুলির তরফে উত্তর দেওয়া হলেই আমরা দক্ষিণ পশ্চিম শাখার রেল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে ট্রেন চালানো নিয়ে কথা বলব।”

notice

প্রসঙ্গত, বিল্ডার্সদের সঙ্গে বৈঠকের পরে বুধবার পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য নির্ধারিত ট্রেন বাতিল করে কর্ণাটকের বিজেপি সরকার। রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় নির্মাণ কাজ ফের শুরু হয়েছে। তাই ভিন রাজ্য থেকে এখানে আসা পরিযায়ী শ্রমিকদের কর্ণাটক না ছাড়ার অনুরোধ করেন মুখ্যমন্ত্রী বিএস ইয়েদুরাপ্পা। এর পাশাপাশি রাজ্য প্রশাসনের তরফে বুধবার থেকে পূর্ব নির্ধারিত সমস্ত ট্রেন বাতিল করার আবেদন জানিয়ে রেলমন্ত্রককে একটি চিঠিও পাঠানো হয়। 

[আরও পড়ুন : ‘লকডাউনেও দেশে করোনার দাপট কমছে না’, মত এইমসের ডিরেক্টরের]

এই বিশেষ ট্রেন পরিষেবা আচমকা কেন স্থগিত রাখা হল ওই চিঠিতে তার কোনও কারণ উল্লেখ করা হয়নি। সূত্রের খবর, মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ক্রেডাইয়ের প্রতিনিধিদের বৈঠকের পরে দায়িত্বপ্রাপ্ত নোডাল অফিসার মঞ্জুনাথ প্রসাদ ভারতীয় রেল কর্তৃপক্ষকে একটি চিঠি লিখেছেন। তাতে উল্লেখ করা হয়েছে, আগের চিঠিতে ৬ মে-র জন্য তিনটি ট্রেনের অনুরোধ করা হয়েছিল। কিন্তু, এই পরিষেবার দেওয়ার দরকার নেই। এখন কোনও ট্রেন লাগবে না। এরপরই তুমুল সমালোচনার মুখে পড়ে ইয়েদুরাপ্পা সরকার।এরপরই সোস্যাল মিডিয়ায় #TrainsForMigrantsNow দিয়ে আন্দোলন শুরু হয়ে যায়।

[আরও পড়ুন : করোনায় মৃত দিল্লির ২ বিএসএফ জওয়ান, টুইটে শোকপ্রকাশ অমিত শাহের]

এর ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই সিদ্ধান্ত বদল করে কর্ণাটক সরকার। মুখ্যমন্ত্রী বি এস ইয়েদুরাপ্পা জানান, আটকে থাকা পরিযায়ী শ্রমিকদের বাড়ি ফেরানো হবে। বিশেষ ট্রেনেও ব্যবস্থা করা হবে। ঝাড়খণ্ড, বিহার, উত্তরপ্রদেশ, বাংলার জন্য দুটি করে বিশেষ ট্রেন ও মণিপুর, ত্রিপুরা, মধ্যপ্রদেশ ও রাজস্থানের জন্য একটি করে বিশেষ ট্রেন চালানোর প্রস্তাব দিয়েছে কর্ণাটক সরকার।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement