BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

তিরুবন্তপুরম বিমানবন্দরের হস্তান্তর রুখতে মরিয়া চেষ্টা, আদালতের দ্বারস্থ কেরল সরকার

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: August 21, 2020 10:06 pm|    Updated: August 21, 2020 10:06 pm

An Images

তিরুবন্তপুরম বিমানবন্দর

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: তিরুবন্তপুরম বিমানবন্দর আদানি গোষ্ঠীর হাতে তুলে দেওয়ার বিষয়ে নিজেদের আপত্তির কথা আগেও জানিয়েছিল। কিন্তু, তাতে সাড়া না দিয়ে গত ১৯ আগস্ট গুয়াহাটি ও জয়পুরের পাশাপাশি তিরুবন্তপুরম বিমানবন্দরটি আদানির হাতে তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। এরপরই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি লিখে এই বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার অনুরোধ জানান কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন। তারপরও সমস্যার সমাধান না হওয়ায় এবার কেরল হাই কোর্টের দ্বারস্থ হল তাঁর সরকার।

শুক্রবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কেরল হাই কোর্ট (Kerala High Court) -এ একটি হলফনামা জমা করেছে পিনারাই বিজয়নের প্রশাসন। ওই হলফনামায় উল্লেখ করা হয়েছে, যেভাবে রাজ্যের আপত্তি অগ্রাহ্য করে তিরুবন্তপুরম (Thiruvananthapuram) বিমানবন্দরটির পরিচালনার ভার বেসরকারি হাতে তুলে দেওয়া হচ্ছে, তা অনুচিত। অবিলম্বে আদালত এই বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে সিদ্ধান্তটি বদলানোর নির্দেশ দিক। আগামী সোমবার আদালত এই বিষয়টি শুনবে বলে জানা গিয়েছে।

[আরও পড়ুন: পোস্টাল ব্যালটে ভোট দিতে পারবেন করোনা আক্রান্তরা, নয়া নির্দেশিকা জারি নির্বাচন কমিশনের]

বুধবার মোদিকে পাঠানো চিঠিতে বিজয়ন লিখেছেন, ‘আপনার কাছে আমি অনুরোধ জানাচ্ছি যে এই বিষয়ে হস্তক্ষেপ করুন। যাতে সিদ্ধান্তটি পুনরায় খতিয়ে দেখা হয়। না হলে আমাদের পক্ষে এই কাজে সহযোগিতা করা সম্ভব হবে না। রাজ্য সরকারের তরফে বারবার অনুরোধ করা সত্ত্বেও তাতে গুরুত্ব দেওয়া হয়নি। ২০০৩ সালে বিমানবন্দরের জন্য বিনামূল্যে জায়গা দিয়েছিল রাজ্য। সেসময় কেন্দ্রীয় অসামরিক বিমান মন্ত্রকের তরফে আশ্বস্ত করা হয়েছিল যে কোনওদিন বিমানবন্দরটি বেসরকারি হাতে তুলে দেওয়া হলে রাজ্যের বক্তব্যও শোনা হবে। কিন্তু, এক্ষেত্রে তা হয়নি। রাজ্যের তরফে একাধিকবার আপত্তি জানানো হলেও নিজের ইচ্ছামত কাজ করেছে কেন্দ্র। তাই কেরলের মানুষের ইচ্ছার বিরুদ্ধে গিয়ে রাজ্য সরকার কেন্দ্রকে এই বিষয়ে কোনও সহযোগিতা করতে পারবে না।’

[আরও পড়ুন: ঋণ শোধে ব্যর্থ অনিল আম্বানি, SBI-এর দায়ের মামলার ভিত্তিতে প্রশাসক নিয়োগ আদালতের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement