BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

পোস্টাল ব্যালটে ভোট দিতে পারবেন করোনা আক্রান্তরা, নয়া নির্দেশিকা জারি নির্বাচন কমিশনের

Published by: Abhisek Rakshit |    Posted: August 21, 2020 7:37 pm|    Updated: August 21, 2020 7:37 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:‌ দেশজুড়ে বেড়েই চলেছে করোনার সংক্রমণ। ইতিমধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ২৯ লক্ষ। মৃত্যু হয়েছে ৫৪ হাজার ৮৪৯ জনের। তবে এই পরিস্থিতিতে সামনেই বিহার বিধানসভা নির্বাচন। এছাড়া রয়েছে বেশ কিছু উপনির্বাচনও। আর তাই শুক্রবার নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে এই মহামারীর মধ্যেই সাধারণ নির্বাচন ও উপনির্বাচনের জন্য নতুন নির্দেশিকা জারি করা হল। তাতে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হল, করোনা আক্রান্ত এবং ৮০ বছরের উর্ধ্বে যাঁরা রয়েছেন তাঁরাও ভোটগ্রহণে অংশ নিতে পারবেন। তবে তাঁরা ভোট দেবেন পোস্টাল ব্যালট পেপারে। এছাড়া অনলাইন মনোনয়ন জমা দেওয়া থেকে শুরু করে গ্লাভস পরে ভোটদান– জারি করা হয়েছে আরও একাধিক নিয়ম। যা নির্বাচনের সময় মানতে হবে প্রত্যেককেই।

[আরও পড়ুন: করোনা আবহে গণেশ উৎসবের ভবিষ্যৎ কী? চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে রাজ্য, মত সুপ্রিম কোর্টের]

নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, করোনা আক্রান্তরাও এবার আসন্ন নির্বাচনে ভোট দিতে পারবেন। শুধু তাই নয়, ৮০ বছরের উর্ধ্বে যাঁরা রয়েছেন, তাঁদেরও ভোট দেওয়ায় বাধা রইল না। তবে এই দুই ক্ষেত্রেই ভোট দিতে হবে ব্যালট পেপারে। এবার থেকে মনোনয়ন জমা দেওয়া যাবে অনলাইনেও। তবে কোনও প্রার্থী যদি সশরীরে মনোনয়নপত্র জমা দিতে যান, তাহলে তাঁর সঙ্গে কেবল দু’‌জন থাকতে পারবেন। নির্বাচন সংক্রান্ত সমস্ত কাজের সময় উপস্থিত প্রত্যেককে মাস্ক পরতে হবে। সঙ্গে রাখতে হবে হ্যান্ড স্যানিটাইজার। এছাড়া বাড়ি–বাড়ি প্রচারের ক্ষেত্রে পাঁচজনের বেশি যেতে পারবেন না। রোড–শোয়ের ক্ষেত্রে পাঁচটির বেশি গাড়ি থাকবে না। আর সমস্ত ক্ষেত্রেই মেনে চলতে সামাজিক দূরত্ববিধিও। শুধু তাই নয়, অমান্য করা যাবে না স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তরফে জারি করা বিধিনিষেধ।

[আরও পড়ুন: ভারতীয় আইনজীবীকে দিয়েই লড়াতে হবে কুলভূষণের মামলা, ইসলামাবাদকে বার্তা দিল্লির]

এছাড়া ভোটগ্রহণের দিনও থাকবে একাধিক বিধিনিষেধ। তাও ওই নির্দেশিকায় স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, ভোটদানের সময় প্রত্যেক ভোটারকে হাতে গ্লাভস পরতে হবে। সেটা তাঁদের দেওয়া হবে ভোটকেন্দ্র থেকেই। ইভিএমে বোতাম টেপার সময় ওই গ্লাভস ব্যবহার করতে হবে। এছাড়া ভোটারদের ফেস মাস্ক এবং হ্যান্ড স্যানিটাইজারও দেওয়া হবে। তবে বুথের মধ্যে প্রবেশের আগে ভোটারের তাপমাত্রা মাপা হবে। সেক্ষেত্রে কারোর তাপমাত্রা বেশি থাকলে একঘণ্টা পর পুনরায় পরীক্ষা করা হবে। তখনও একই ফলাফল এলে একদম শেষে ভোটদানের সুযোগ দেওয়া হবে। সেক্ষেত্রে ভোটারকে ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার এক ঘণ্টা আগে বুথে আসতে বলা হবে। এখানেই শেষ নয়, রাজ্য, জেলা এবং প্রতিটি নির্বাচনী ক্ষেত্রের জন্য পৃথক পৃথক নোডাল অফিসারও নিয়োগ করতে হবে। এছাড়া করোনা মোকাবিলায় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের সমস্ত নির্দেশিকা মেনে প্রচার এবং ভোটগ্রহণ চলবে বলে জানিয়েছে কমিশন।

 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement