২৩  শ্রাবণ  ১৪২৯  শুক্রবার ১২ আগস্ট ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

নোটবন্দি দেশের অর্থনীতিকে ধ্বংস করেছে, টুইট করে কটাক্ষ মমতার

Published by: Subhamay Mandal |    Posted: November 8, 2018 4:23 pm|    Updated: November 8, 2018 4:23 pm

Mamata-Jaitley twitter war on demo

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: নোটবন্দির দ্বিতীয় বর্ষপূর্তিতেও চাপানউতোর অব্যাহত রইল দিল্লি থেকে বাংলা। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই নোটবন্দি ইস্যুতে ফের সরব হলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যদিও বিরোধীদের সমালোচনার জবাব দিতে নোটবন্দির খারাপ প্রভাবের কথা সরাসরি অস্বীকার করেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। দেশের অর্থনীতি ছন্দে ফিরে এসেছে বলে দাবি করেন তিনি। অন্যদিকে, নোটবন্দি সিদ্ধান্তকে কটাক্ষ করতে ছাড়লেন না দেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংও।

[‘লাল’ সন্ত্রাসে ফের রক্তাক্ত ছত্তিশগড়, উগ্রপন্থীদের সমর্থন কংগ্রেসের]

নোটবন্দির প্রতিবাদ আগেও করেছিলেন মমতা। এদিন নোটবন্দির দ্বিতীয় বর্ষপূর্তিতে বিজেপি সরকারের আর্থিক নীতির কড়া ভাষায় নিন্দা করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লিখেছেন, ‘‘নোটবন্দির দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি একটি কালো দিন। নোটবন্দির নামে দেশের সঙ্গে প্রতারণা হয়েছে। দেশের অর্থনীতিকে ধ্বংস করেছে নোটবন্দি। যারা এই কাজ করেছে মানুষই তাদের শাস্তি দেবে।” প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ৮ নভেম্বর দেশবাসীর উদ্দেশে ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সেই ভাষণে গোটা দেশ তোলপাড় হয়। কালো টাকার ব্যবহার রুখতে ১০০০ ও ৫০০ টাকার পুরনো নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয় মোদি সরকার। এটিএম, ব্যাঙ্কেও বসে নিয়ন্ত্রণ। প্রতিশ্রুতি ছিল কালো টাকা মুক্ত হবে অর্থনীতি। বহু ভোগান্তি এবং হয়রানির পরও সুফল আসেনি। আরবিআইয়ের রিপোর্ট জানাচ্ছে, বাতিল টাকা ব্যাঙ্কেই ফেরত এসেছে। ২ বছর পরেও নোট বাতিল নিয়ে লাভ-ক্ষতির হিসেবনিকেশ চলছে।

যদিও এদিন অরুণ জেটলি নোটবন্দিকে সফল হিসাবে দেখিয়ে বলেন, “অর্থনীতির ছন্দ ফেরাতেই নোটবন্দি করা হয়। আইনভঙ্গকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ডিবিজাল লেনদেন বেড়েছে। কর্পোরেট কর সংগ্রহ বেড়েছে। করদাতার সংখ্যা বেড়েছে। চলতি আর্থিক বছরে ২০.২ শতাংশ হারে কর জমা বেড়েছে। কালো টাকা ফেরাতে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল সেই টাকায় নানা উন্নয়নমূলক কাজ করা হয়েছে।” অন্যদিকে, কংগ্রেসের তরফে মনমোহন সিং সংবাদমাধ্যমের সামনে এসে নোটবন্দির সিদ্ধান্ত যে কত বড় ভুল ছিল তা উল্লেখ করে গোটা প্রক্রিয়াকে অসাধু বলে তোপ দাগেন। তিনি বলেছেন, “জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সমস্ত মানুষ নোটবন্দির কবলে পড়ে ভুগেছেন। এটি ছিল একটি অসাধু প্রক্রিয়া। নোটবন্দির ক্ষত এখনও প্রকট রয়েছে।”

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে