BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বাড়ি ফেরার দাবিতে গুজরাটের রাস্তা অবরোধ, বিক্ষোভ পরিযায়ী শ্রমিকদের

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: May 13, 2020 9:21 pm|    Updated: May 13, 2020 9:21 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ফের পরিযায়ী শ্রমিকদের বিক্ষোভ গুজরাটে। কচ্ছের (Kutch) জাতীয় সড়ক আটকে বাড়ি ফেরার দাবিতে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন তাঁরা। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে গেলে তাঁদের দিকে পাথর ছোঁড়ার অভিযোগ ওঠে।

করোনার সংক্রমণ হোক বা লকডাউন, আর কিছউ গ্রাহ্য করেন না পরিযায়ী শ্রমিকরা। প্রায় ২ মাস হতে চলল দেশ জুড়ে চলছে লকডাউন। শেষ হতে চলেছে তৃতীয় পর্বও। এমতাবস্থায় গুজরাটের পরিযায়ী শ্রমিকদের মুখে একটাই বক্তব্য, বাড়ি ফিরতে হবে। তাই সেই দাবি নিয়ে বুধবার গুজরাটের কচ্ছের জাতীয় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করলেন তাঁরা। রাস্তা অবরোধ করায় আটকে পড়ে যান চলাচল। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে ও অবরোধ তুলে দেওয়া চেষ্টা করলে পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথর ছুঁড়তে শুরু করেন পরিযায়ী শ্রমিকরা। এক পুলিশ কর্মী জানান যে, বাড়ি ফেরার জন্য সরকারি যা যা পদক্ষেপ ছিল তাঁরা তা সম্পূর্ণ করেছেন। তবে সরকারি আধিকারিকের তরফ থেকে পরবর্তী কোনও সিদ্ধান্ত তাঁদের জানানো হয়নি। তাই তাঁরা ক্ষুব্ধ হয়ে রাস্তায় নেমে অবরোধ করছেন। পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথর ছোঁড়ার সময় গান্ধীধাম-খান্ডালার কাছে দাঁড়িয়ে থাকা পুলিশের একটি ট্রাকের সামনের কাচ ভেঙে যায়। প্রকাশিত হওয়া একটি ভিডিওতে দেখা যায়, ক্ষুব্ধ পরিযায়ী শ্রমিকদের থামাতে তাদের দিকে ছুটে যাচ্ছে পুলিশ। অন্যদিকে পূর্ব কচ্ছের পুলিশ আধিকারিক পরীক্ষিতা রাঠোর ক্ষিপ্ত শ্রমিকদের শান্ত করতে মাইকিং করতে শুরু করেন। তিনি বার বার শ্রমিকদের শান্ত হওয়ার আবেদন করেন। পূর্ব কচ্ছের পুলিশ আধিকারিক পরীক্ষিতা রাঠোর সংবাদ সংস্থাকে জানান, “ধৈর্য হারিয়ে পরিযায়ীরা রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ করছেন। পাথর ছোঁড়ার ফলেই পুলিশের ট্রাকের সামনের কাচ ক্ষতিগ্রস্ত হয়।” গান্ধীধাম বি বিভাগের পুলিশ আধিকারিক পরে গিয়ে পরিস্থতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

[আরও পড়ুন:করোনার জেরে বদল আইনজীবী-বিচারকদের পোশাক, সিদ্ধান্ত প্রধান বিচারপতির]

হরিয়ানাতেও বাড়ি ফেরার দাবিতে এদিন কমিশনারের বাড়ির সামনে বিক্ষোভ দেখান পরিযায়ী শ্রমিকরা। যত দ্রুত সম্ভব তারা বাড়ি ফিরতে চান কাজ হারিয়ে পরিজনেদের থেকে দূরে ভিন রাজ্যে থাকছেন তাঁরা। সঙ্গে উপরি পাওনা হিসেবে রয়েছে সংক্রমণের ভয়। তাই নিয়মের বেড়াজাল তাদের কাছে ক্রমে অসহনীয় হয়ে উঠছে।

[আরও পড়ুন:লকডাউনের মধ্যেই রাজ্য সরকারি কর্মীদের জন্য সুখবর, বোনাস ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement