BREAKING NEWS

১ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

শরীরে করোনার উপসর্গ, হাসপাতালে ভরতি নিতে বলে ভিডিওতে কাতর আর্জি কনস্টেবলের

Published by: Sulaya Singha |    Posted: April 27, 2020 7:49 pm|    Updated: April 27, 2020 7:49 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: শরীরে করোনার উপসর্গ দেখা দিয়েছে। এখনই হাসপাতালে ভরতি না নিলে অনেক দেরি হয়ে যাবে। হাসপাতালে গেলেও ভরতি করতে অস্বীকার করা হয়। একটি ভিডিওতে এভাবেই নিজের সমস্যা তুলে ধরেছেন এক পুলিশ কনস্টেবল। যা এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল।

চিকিৎসক-স্বাস্থ্যকর্মী, সাফাইকর্মীর মতোও তাঁরাও জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত। দেশ যাতে করোনা মুক্ত হতে পারে, তার জন্য প্রতিনিয়ত জনসাধারণকে সচেতন করে চলেছে। সমাজের সেই রক্ষকই এখন করোনার ভয়ে কাঁটা। অথচ সঠিক চিকিৎসা পাচ্ছেন না বলেই দাবি জানাচ্ছেন তিনি। করোনা প্রাণ কেড়েছে মুম্বইয়ের দুই সিনিয়র পুলিশকর্মীর। তার পরের দিন রবিবারই প্রকাশ্যে এল ট্রাফিক কনস্টেবলের ভিডিওটি। যা নিয়ে ছড়ায় তীব্র চাঞ্চল্য। ভিডিওতে নিজের অসহায়তার কথা ব্যক্ত করেন তিনি। ৩৫ বছরের কনস্টেবল জানান, তাঁকে ভয়ে ভয়ে দিন কাটাতে হচ্ছে তাঁদের।

[আরও পড়ুন: খিদে মেটানোয় সুরাহা নেই, ওয়েব পোর্টাল তৈরি করে পরিযায়ী শ্রমিকদের সাহায্যের আশ্বাস যোগীর]

ভিডিওতে তিনি জানান, ওয়াডালার একটি হটস্পটে তাঁকে ডিউটি দেওয়া হয়েছিল। তাঁর অনুমান, সেখান থেকেই হয়তো সংক্রমিত হয়েছেন। তবে তিনি আদৌ আক্রান্ত কি না, তা নিশ্চিত হতে পারেননি। বলেন, “বুধবার থেকে সর্দি-কাশি আছে। অসুস্থ বলে KEM হাসপাতালে ভরতি হতে গিয়েছিলাম, কিন্তু আমায় ভরতি নেওয়া হচ্ছে না। কস্তুরবা হাসপাতাল যাওয়ার জন্য কোনও অ্যাম্বুল্যান্সেরও ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়নি।” এবিষয়ে মুম্বই পুলিশের মুখপাত্র প্রণয় অশোক জানান, ওই কনস্টেবল অযথা বেশি আতঙ্কিত হচ্ছিলেন। পরে তাঁকে হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে।

শনিবার দুই পুলিশ কর্মী করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারানোয় দুশ্চিন্তা বেড়েছে মুম্বইয়ের অন্যান্য পুলিশ কর্মীদের মধ্যে। অসুস্থ বোধ করাতেই তাই আতঙ্কিত হয়ে পড়েন ওই কনস্টেবল। সেই কারণেই ভিডিও করে অনুরোধ জানাতে থাকেন তিনি। তাঁর ভিডিওতে শেষমেশ কাজ হয়েছে।

[আরও পড়ুন: আক্রান্তদের সুস্থ করতে প্লাজমা দিচ্ছেন করোনামুক্ত ৩০০ জন তবলিঘি জামাত সদস্য]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement