BREAKING NEWS

২৯ শ্রাবণ  ১৪২৭  শনিবার ১৫ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

ভূস্বর্গের নয়া মানচিত্র প্রকাশ দিল্লির, অন্তর্ভুক্ত পাক অধিকৃত কাশ্মীরও

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: November 3, 2019 8:48 am|    Updated: November 3, 2019 8:56 am

An Images

সোমনাথ রায়, দিল্লি:  নতুন রূপ পেল ভারতের মানচিত্র। নয়া দুই কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল চিহ্নিত করে দেশের নতুন মানচিত্র প্রকাশ করা হল। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক শনিবার জম্মু ও কাশ্মীরে সদ্য গঠিত কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল এবং লাদাখের সীমানা সম্পর্কিত বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে। সেই বিজ্ঞপ্তিটিতে ভারতের একটি নতুন রাজনৈতিক মানচিত্রও রয়েছে। যার মধ্যে পাকিস্তান-অধিকৃত কাশ্মীরের মীরপুর ও মুজফ্ফরাবাদের মতো অঞ্চলও রয়েছে। দেশের নতুন কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলি আনুষ্ঠানিকভাবে তৈরি হওয়া এবং তাদের প্রথম লেফটেন্যান্ট গভর্নরের শপথ গ্রহণের দু’দিন পরে এই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হল।

[আরও পড়ুন: কর্তারপুর করিডর উদ্বোধন, কেন্দ্রের কাছে পাকিস্তান যাওয়ার অনুমতি চাইলেন সিধু]

বৃহস্পতিবার ভারতের রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের হিসেবনিকেশ বদলে নয়া অস্তিত্ব নিয়ে আত্মপ্রকাশ করেছে। দুই কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল, সর্দার বল্লভভাই প্যাটেলের ১৪৪ তম জন্মবার্ষিকীতে জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখ কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে রূপান্তরিত হয়। জম্মু ও কাশ্মীর দ্বিখণ্ডিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ভারতে রাজ্যের সংখ্যা কমে দাঁড়িয়েছে ২৮ এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির সংখ্যা বেড়ে হয়েছে নয়। মোদি সরকার দ্বিতীয়বার কেন্দ্রে ক্ষমতায় আসার প্রথম ১০০ দিনের মধ্যেই বিজেপির দীর্ঘকালীন প্রতিশ্রুতি পূরণ করে ৫ আগস্ট বিশেষ মর্যাদার সমাপ্তি ঘটিয়ে এই ভাগাভাগির পথ সুগম করে। সরকার যুক্তি দিয়েছিল যে ৩৭০ এবং ৩৫-এ ধারা উভয়ই ‘সাংবিধানিকভাবে দুর্বল’ এবং বৈষম্যমূলক ছিল যা রাষ্ট্রের বিকাশকে বাধা দিয়েছে।

শনিবার প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি অনুসারে, জম্মু ও কাশ্মীরের কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল কারগিল ও লেহ ব্যতীত পূর্বের রাজ্যের সমস্ত জেলা নিয়েই থাকবে। কারগিল ও লেহ থাকবে লাদাখের কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের অধীনে। আগে বৃহস্পতিবারই প্রাক্তন কেন্দ্রীয় ব্যয় সচিব গিরিশচন্দ্র মুর্মু জম্মু ও কাশ্মীরের প্রথম লেফটেন্যান্ট-গভর্নর হিসেবে শপথ নেন। আর প্রাক্তন প্রতিরক্ষা সচিব রাধাকৃষ্ণ মাথুর লাদাখের প্রথম লেফটেন্যান্ট গভর্নর হিসেবে শপথ নেন।

[আরও পড়ুন:পার্কিং নিয়ে বচসার জের, পুলিশ ও আইনজীবীদের সংঘর্ষে রণক্ষেত্র দিল্লির আদালত]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement