৪ মাঘ  ১৪২৮  মঙ্গলবার ১৮ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

দৈনন্দিন জীবন থেকে যৌনতা-আমিষ খাবার বাদ দিলেই মিলবে সুস্থ সন্তান!

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: June 13, 2017 11:54 am|    Updated: June 13, 2017 11:54 am

No meat, no sex, pure thoughts: Modi ministry’s prescription to pregnant women for healthy baby

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সুস্থ সবল সন্তান তো সবাই পেতে চান। আর এবার সুস্থ সন্তান পাওয়ার উপায়ও বাতলে দিল মোদি সরকারের আয়ুষ মন্ত্রক। তা কী সেই উপায়? গর্ভাবস্থার পর যৌনমিলন করা চলবে না। মাংস খাওয়া যাবে না, খেতে হবে নিরামিষ খাবার। পবিত্র চিন্তা করতে হবে। আর এগুলি যদি আপনি অক্ষরে অক্ষরে মেনে চলতে পারেন, তাহলে স্বাস্থ্যবান সন্তানের জন্ম হবে।

[বিনুনি না বাঁধায় শাস্তি! হাসপাতালে ভর্তি পঞ্চম শ্রেনির ছাত্রী]

আয়র্বেদিক, যোগের মতো ভারতের চিরাচরিত চিকিৎসা পদ্ধতিগুলিকে জনপ্রিয় করে তোলার জন্যই এই আয়ুষ মন্ত্রক তৈরি করা হয়েছে। আগামী ২১ জুন আন্তর্জাতিক যোগ দিবস। এই উপলক্ষ্যে একটি বুকলেট বা পুস্তিকা প্রকাশ করেছে আয়ুষ মন্ত্রক। পুস্তিকার উদ্বোধন করেছেন মন্ত্রকের রাষ্ট্রমন্ত্রী শ্রীপাদ নায়েক। সেই পুস্তিকাতেই সুস্থ সন্তান লাভের জন্য এই অভিনব পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

[ফেসবুকে যোগীর ছবি পোস্ট, মাথা চেয়ে ইনাম ঘোষণায় অভিযুক্ত তিন]

ঠিক কী বলা হয়েছে পুস্তিকাটিতে? বলা হয়েছে, সুস্থ সন্তান পেতে হলে গর্ভবতী মহিলাদের আকাঙ্খা, ক্রোধ, আর্কষণ, ঘৃণা, ও যৌন কামনা থেকে দূরে থাকতে হবে। কুসঙ্গ ত্যাগ করে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভাল মানুষদের সঙ্গে মেলামেশা করতে হবে। শোওয়ার ঘরে ভাল ও সুন্দর ছবি রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। তাতে শিশুর ওপর ইতিবাচক প্রভাব পড়বে। পাশাপাশি, গর্ভাবস্থায় আধ্যাত্মিক চিন্তা ও মহৎ মানুষদের জীবনী পড়ে মহিলাদের শান্ত থাকতে হবে।

[মোদির রাজ্যে স্মৃতি ইরানিকে চুড়ি ছুড়ে মারলেন এক যুবক]

আয়ুষ মন্ত্রকের পরামর্শ অবশ্য খারিজ করে দিয়েছেন স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞরা। চিকিৎসকদের মতে,  প্রোটিনে ঘাটতির কারণে অপুষ্টি ও রক্তাল্পতার সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই গর্ভাবস্থায়  প্রোটিন ও আয়রনের জন্য মাংস খাওয়া অত্যন্ত জরুরি। কারণ নিরামিষ প্রোটিনের তুলনায় প্রাণিজ প্রোটিন শরীরে অনেক সহজে মিশে যায়। এমনকী, গর্ভাবস্থায় জটিলতা না থাকলে, সেক্সেও কোনও সমস্যা নেই বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। তবে গর্ভধারণের পর প্রথম কয়েক মাস সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত।

[অফিসে দেরি করে আসায় মহিলাকে লাথি পুরুষ সহকর্মীর, দেখুন ভিডিও]

চিকিৎসকরা বলছেন, গর্ভাবতীদের আনন্দে থাকাটা অবশ্যই প্রয়োজন। কিন্তু ঠিক কী ভেবে তাঁরা খুশি থাকবেন তা বলে দেওয়ার বদলে আমাদের উচিত, তাঁদের সেটাই করতে উৎসাহ দেওয়া, যেটা করে তাঁরা আনন্দে থাকবেন। বাইরে থেকে কিছু চাপিয়ে দেওয়া উচিত নয়।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে