১৭ চৈত্র  ১৪২৬  মঙ্গলবার ৩১ মার্চ ২০২০ 

Advertisement

এবার আম আদমি পার্টিতে যোগ দিতে পারেন প্রশান্ত কিশোর! নয়া জল্পনা দিল্লিতে

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: February 22, 2020 9:22 am|    Updated: February 22, 2020 9:22 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: জনতা দল ইউনাইটেড থেকে বহিষ্কৃত হওযার পর প্রশান্ত কিশোরের পরবর্তী রাজনৈতিক পদক্ষেপ নিয়ে জল্পনা চলছেই। এরই মধ্যে আসরে নামল আম আদমি পার্টি। সম্প্রতি প্রশান্তের (Prashant Kishor) তত্ত্বাবধানে দিল্লিতে অভূতপূর্ব সাফল্য পেয়েছে আপ। আগামী দিনে সারা দেশে নিজেদের প্রভাব বিস্তারে মরিয়া দিল্লির শাসকদল। আর সেই উদ্দেশ্য সাধনে প্রশান্ত কিশোরের মতো কূশলী যে তাঁদের কতটা উপকারে লাগতে পারে, তা ভালমতোই জানে আপ নেতৃত্ব। সেজন্যেই হয়তো প্রাক্তন জেডিইউ নেতাকে দলে টানার ইঙ্গিত দিলেন আপ নেতা সঞ্জয় সিং।

Kejri-PK

শুক্রবার এক সাংবাদিক বৈঠকে আম আদমি পার্টির (Aam Aadmi Party) নেতা জানিয়েছেন, প্রশান্ত কিশোর যদি আপে যোগদান করতে চান, তাহলে দলের তরফে কোনও আপত্তি থাকবে না। তবে, এটা প্রশান্ত কিশোরকেই ঠিক করতে হবে, তিনি আপে যোগ দেবেন কিনা। উল্লেখ্য, প্রশান্ত জেডিইউ থেকে বহিষ্কৃত হওয়ার পরই তাঁর তৃণমূলে যোগের জল্পনা ছড়িয়েছিল। তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়ও একইভাবে জানান, পিকে দলে এলে তাঁদের কোনও আপত্তি নেই। এরপর এরাজ্যের তৃণমূল সরকার রাজনৈতিক কূশলীকে ‘জেড ক্যাটেগরির’ নিরাপত্তা দেওয়ারও সিদ্ধান্ত নেয়। সব মিলিয়ে প্রশান্ত কিশোরের তৃণমূল যোগের জল্পনা যখন তুঙ্গে, তখনই আসরে নামল আপ।

[আরও পড়ুন: অমূল্যা বিতর্কে নয়া মাত্রা, যুবতীর সঙ্গে ‘নকশাল যোগ’ দেখছেন কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী ইয়েদুরাপ্পা]

এদিকে, প্রশান্তের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে বিহারেও চরম জল্পনা চলছs। ইতিমধ্যেই তিনি বিহারের শাসক জোট বিজেপি-জেডিইউয়ের বিরুদ্ধে একটি প্রচারাভিযান শুরু করেছেন। ‘বাত বিহার কি’ নামের ওই প্রচারাভিযানে তিনি আসলে কাকে সাহায্য করতে চাইছেন, তা স্পষ্ট নয়। শোনা যাচ্ছে, বিহার বিধানসভা নির্বাচনের আগে তিনি কানহাইয়া কুমার বা তেজস্বী যাদবের সঙ্গে হাত মিলিয়ে কাজ করতে পারেন। তবে, সে বিষয়ে এখনও পোক্ত কোনও ইঙ্গিত মেলেনি। এদিকে, ইতিমধ্যেই তাঁর সঙ্গে দেখা করেছেন বিহারের চার ছোট বিরোধী দলের নেতারা। জিতন রাম মাঁঝি, উপেন্দ্র কুশওয়াহা-র মতো নেতারাও তাঁর সঙ্গে দেখা করেছেন। সব মিলিয়ে প্রশান্ত কিশোরের পরবর্তী রাজনৈতিক পদক্ষেপ কী হবে, তা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে রীতিমতো আলোচনা চলছে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement