BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি নেই, ৫ দিন পর খুলল মুম্বাই-বেঙ্গালুরু সংযোগকারী জাতীয় সড়ক

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: August 12, 2019 12:01 pm|    Updated: August 12, 2019 12:17 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: জল বাড়ছে, পাল্লা দিয়ে বাড়ছে প্রাণহানিও৷ বন্যা বিপর্যস্ত কেরলে এখনও পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ৭২৷ পাশের রাজ্য কর্ণাটক এবং পশ্চিমে মহারাষ্ট্রকে ধরলে, বন্যায় মৃত্যু হয়েছে শতাধিক মানুষের৷ আরও ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস শোনাচ্ছে হাওয়া অফিস৷ ফলে পরিস্থিতি আরও অবনতি হওয়ার আশঙ্কা৷

[ আরও পড়ুন: ৩৭০ ধারা বাতিলের পর চিত্র বদল, ভূস্বর্গে নির্বিঘ্নেই পালিত খুশির ইদ]

রবিবারই হেলিকপ্টার থেকে আকাশপথে কেরল, কর্ণাটকের বন্যা পরিস্থিতি পরিদর্শন করেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ৷ তারপরই তিনি সংশ্লিষ্ট আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠক করে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন৷ সামব্রা বিমানবন্দর থেকে নতুন করে উদ্ধারকাজ শুরু করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে৷ গত এক দশকের ভয়াবহ বন্যা পরিস্থিতি কেরলে৷ যার মোকাবিলায় আগেই কেন্দ্রের সাহায্য চেয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন৷ রবিবার অমিত শাহ আশ্বাস দিয়েছেন, দুর্গতদের উদ্ধারে প্রয়োজনে আরও সেনা দেবে কেন্দ্র৷ বিস্তীর্ণ এলাকা জলের নিচে চলে যাওয়া সেসব জায়গা থেকে আকাশপথে মানুষজনকে উদ্ধার করতে হচ্ছে৷ ভূমিধ্বসের আশঙ্কাও রয়েছে বলে সতর্কবার্তা জারি করেছেন মুখ্যমন্ত্রী বিজয়ন৷ সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতি কাসারগোড়, ওয়ানড়, কান্নুর জেলার৷ হেলিকপ্টার থেকে তোলা ছবিই তার প্রমাণ৷ শনিবারই ওয়ানড়ে বন্যা পরিস্থিতি পরিদর্শন করেছেন সেখানকার কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধী৷ দুর্গতদের সাহায্যে সবরকম সাহায্যের আশ্বাস দিয়েছেন৷ বিপদ মোকাবিলায় মুখ্যমন্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রীকে একযোগে কাজ করার আবেদন জানিয়েছেন৷

অপর দিকে, বন্যা পরিস্থিতিক খুব একটা উন্নতি নেই মহারাষ্ট্রেও৷ মুম্বই থেকে বেঙ্গালুরু সংযোগকারী ৪ নং জাতীয় সড়কে আজ থেকে খোলা হলেও, জল জমে থাকার কারণে যানজট হচ্ছে৷ প্লাবনের জন্য পাঁচদিন ধরে বন্ধ ছিল এই হাইওয়ে৷ কোলাপুর, সাংলি জেলার পরিস্থিতি এখনও উদ্বেগজনক৷

দক্ষিণ ও পশ্চিম ভারতের পর লাগাতার ভারী বৃষ্টির ভ্রুকুটি উত্তর ভারতেও৷ ইতিমধ্যেই উত্তরাখণ্ডে মেঘভাঙা বৃষ্টিতে মৃত্যু হয়েছে অন্তত তিনজনের৷ পাহাড়ি এলাকায় ভেঙে পড়েছে দু,একটি বাড়ি৷ মৌসম ভবন সূত্রে সতর্কতা জারি করে বলা হয়েছে, চামোলি, দেরাদুন, নৈনিতাল, রুদ্রপ্রয়াগে মঙ্গলবার থেকে টানা ৪ দিন প্রবল বৃষ্টির সম্ভাবনা৷

[ আরও পড়ুন: কোমর জলে নেমে দুই শিশুকে উদ্ধার, কাঁধ বাড়িয়ে বন্যাবিধ্বস্ত গুজরাটে ত্রাতা কনস্টেবল]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement