BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

করোনা রোধে ফের নয়া পদক্ষেপ, কোয়ারেন্টাইনে থাকার সময় দ্বিগুণ করল ওড়িশা সরকার

Published by: Sulaya Singha |    Posted: May 8, 2020 7:37 pm|    Updated: May 8, 2020 7:37 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনাকে রাজ্য থেকে নির্মূল করতে বদ্ধপরিকর ওড়িশা সরকার। আর সেই উদ্দেশ্যে আরও একটি বড় পদক্ষেপ করলেন মুখ্যমন্ত্রী নবীন পটনায়ক। শুক্রবার পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য বাড়ানো হল কোয়ারেন্টাইনে থাকার সময়সীমা। ১৪ নয়, এবার ২৮ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে বাইরে থেকে রাজ্যে ফেরা শ্রমিকদের।

দীর্ঘদিন পর লকডাউনের তৃতীয় পর্বে অবশেষে ভিনরাজ্য থেকে বাড়ি ফিরতে পারছেন শ্রমিকরা। ব্যতিক্রমী নয় ওড়িশাও। সেখানে হাজার হাজার পরিযায়ী শ্রমিককে ফেরানো হচ্ছে ট্রেনে। আর তাঁদের থেকে যাতে সংক্রমণের বিন্দুমাত্র সম্ভাবনাও না থাকে, তার জন্যই বিশেষ পদক্ষেপ ওড়িশা সরকারের। শুক্রবার সরকারের তরফে মুখপাত্র সুব্রত বাগচি জানালেন, এ রাজ্যে পা রাখার পর এবার থেকে ২৮ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। যার মধ্যে ২১ দিন সরকারের
ব্যবস্থা করা কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে ও বাকি সাতদিন কাটাতে হবে হোম কোয়ারেন্টাইনে। আসলে বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গিয়েছে, ২৮ দিন পর্যন্ত কোনও ব্যক্তির থেকে সংক্রমণের সম্ভাবনা থেকে যায়। সেই কারণেই এই সিদ্ধান্ত বলে জানান মুখপাত্র। সেই সঙ্গে তিনি বলেন, কোয়ারেন্টাইন সেন্টারের চারদিকে ১৪৪ ধারা জারি থাকবে। ওই এলাকায় যাতে কেউ ভিড় জমাতে না পারে, তার জন্য টহল দেবে পুলিশ।

[আরও পড়ুন: অনলাইনে মদ বিক্রির বিষয়ে রাজ্যগুলিকে ভেবে দেখার পরামর্শ সুপ্রিম কোর্টের]

মহারাষ্ট্র, গুজরাট, পশ্চিমবঙ্গ, রাজস্থানের তুলনায় অনেকটাই সন্তোষজনক পরিস্থিতি ওড়িশার। করোনা রুখতে সর্বদা তৎপর নবীন পটনায়ক প্রশাসন। এর আগে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, চিকিৎসক বা নার্স করোনার বলি হলে তাঁদের শহিদ হিসেবে গণ্য করা হবে। সেই সঙ্গে তাঁদের জন্য আর্থিক সাহায্যের ঘোষণাও করেছিলেন। এখনও পর্যন্ত সে রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ২০০। ৬০ জনেরও বেশি মানুষ করোনাকে জয় করে সুস্থ হয়ে উঠেছেন। প্রাণ হারিয়েছেন
দু’জন। এমন পরিস্থিতিতে বিশ্ব রেড ক্রস দিবসে গোটা দুনিয়ার ভলান্টিয়ারদের প্রশংসা শোনা গিয়েছিল ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রীর গলায়। তাঁরা যেভাবে প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন, তার জন্য কুর্নিশ জানান তিনি।

[আরও পড়ুন: ‘চিৎকার করেও বাঁচাতে পারিনি কাউকে’, আক্ষেপ ঔরঙ্গাবাদ ট্রেন দুর্ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীর]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement