১০  আশ্বিন  ১৪২৯  শুক্রবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

‘পার্টির লাইনই, আমার লাইন’, গডসে বিতর্কে ক্ষমা চাইলেন সাধ্বী প্রজ্ঞা

Published by: Tanujit Das |    Posted: May 17, 2019 11:04 am|    Updated: May 17, 2019 2:04 pm

'Party line is my line,' says Sadbhi Pragya Thakur

সংবাদ প্রতিদিন জিডিটাল ডেস্ক: গান্ধীজির হত্যাকারী নাথুরাম গডসেকে ‘দেশভক্ত’ বলায় বিতর্কের মুখে পড়ে অবশেষে পিছু হটলেন ভোপালের বিজেপি প্রার্থী স্বাধ্বী প্রজ্ঞা৷ এই মন্তব্যের জন্য ক্ষমা চাইলেন তিনি৷ অস্বস্তি কমাতে বিজেপির তরফে স্পষ্ট ভাষায় ঘোষণা করা হল যে, ওই মন্তব্য স্বাধ্বীর ব্যক্তিগত৷ এরসঙ্গে দলের কোনও সম্পর্ক নেই৷

[ আরও পড়ুন: রাহুলকে এড়িয়ে জোট গঠনের কাজে সোনিয়া! মোদিকে সরাতে মরিয়া কংগ্রেস]

বিতর্ক যেন তাঁর দৈনন্দিন জীবনের সঙ্গী হয়ে গিয়েছে৷ তিনি যা বলেন, যা করেন, তাতেই বিতর্ক তৈরি হয়৷ ঠিক যেমন গান্ধীর হত্যাকারী নাথুরাম গডসেকে নিয়ে এবার বিতর্কে জড়ালেন তিনি৷ ঘটনার সূত্রপাত, দক্ষিণী অভিনেতা তথা এমএনএম প্রধান কমল হাসানের একটি মন্তব্যকে কেন্দ্র করে৷ তামিলনাড়ুর একটি জনসভায় গডসেকে ‘স্বাধীন ভারতের প্রথম সন্ত্রাসবাদী ’ বলে দাবি করেন তিনি৷ কমল হাসানের এই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতেই গডসেকে ‘দেশভক্ত’ বলে পালটা দাবি করেন স্বাধ্বী৷ তাঁর এই মন্তব্যকে কেন্দ্র করে তুঙ্গে ওঠে রাজনৈতিক তরজা৷ সরাসরি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও বিজেপি সভাপতি অমিত শাহকে আক্রমণ করেন ভোপাল লোকসভা কেন্দ্রের কংগ্রেস প্রার্থী দিগ্বিজয় সিং। বিজেপিকে আক্রমণ করেন অন্যান্য কংগ্রেস নেতারাও। চাপে পড়ে অবশেষে বিজেপির উত্তরপ্রদেশের মিডিয়া ইনচার্জ লোকেন্দ্র পরাসর জানান, নাথুরাম গডসে সম্পর্কে সাধ্বী প্রজ্ঞা সিং ঠাকুর যা বলেছেন, সেটি তাঁর ব্যক্তিগত মতামত। বিজেপি তাঁর মন্তব্যের সঙ্গে সহমত পোষণ করে না৷ এরপরই ক্ষমা চান প্রজ্ঞা৷ জানান, পার্টির সিদ্ধান্তই, তাঁর সিদ্ধান্ত৷

[ আরও পড়ুন: রাজীব কুমারকে কি হেফাজতে পাবে সিবিআই? শুক্রবার রায় দেবে সুপ্রিম কোর্ট ]

দক্ষিণী অভিনেতা তথা রাজনীতিবিদ কমল হাসানের মন্তব্যের প্রেক্ষিতে একটি মামলা দায়ের হয় দিল্লির দায়রা আদালতে। ওই আবেদনটি খতিয়ে দেখতে সম্মত হয় দায়রা আদালত। বৃহস্পতিবার দায়রা বিচারক সুমিত আনন্দ জানান, ২ আগস্ট এই আবেদনের শুনানি হবে। ওই দিনই আবেদনকারী বিষ্ণু গুপ্তার বক্তব্য নথিবদ্ধ করা হবে বলে বিচারক জানান। গডসের বিরুদ্ধে মন্তব্য করে কমল যে শুধু আইনি ঝামেলায় পড়েছেন তা নয়। রাজ্যবাসীর একাংশও তাঁর উপর প্রবল ক্ষুব্ধ হয়েছেন। বুধবার বিকেলে তিরুপ্পারানকুনদ্রাম লোকসভা কেন্দ্রে এক নির্বাচনী জনসভায় ভাষণ দিচ্ছিলেন কমল। সে সময় আচমকাই ভিড়ের মধ্যে থেকে তাঁকে লক্ষ্য করে একটি জুতো ছোঁড়া হয়। তবে জুতোটি তাঁর গায়ে লাগেনি। এই ঘটনায় এক ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। গডসের বিরুদ্ধে মন্তব্যের কারণেই কমলকে লক্ষ্য করে জুতো ছোঁড়া হয়েছে বলে তাঁরই দলের সদস্যরা মনে করছেন।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে