১৩ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  সোমবার ৩০ নভেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘ভিন রাজ্যের বাসিন্দারা কাশ্মীরে এলে ধর্ষণ বাড়বে’, পিডিপি নেতার মন্তব্যে বিতর্ক

Published by: Paramita Paul |    Posted: October 28, 2020 5:06 pm|    Updated: October 28, 2020 5:14 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ভিন রাজ্যের বাসিন্দারা কাশ্মীরে (Kashmir) থাকতে এলে ধর্ষণের মতো অপরাধ বাড়বে। এমনই দাবি পিডিপি (PDP) নেত্রী মেহবুবা মুফতি ঘনিষ্ঠ নেতা সুরিন্দর চৌধুরীর। এখন থেকে ভিন রাজ্যের বাসিন্দারাও কাশ্মীরে জমি কিনতে পারবেন। কেন্দ্র সরকারের এই পদক্ষেপের পরই এমন মন্তব্য করেন ওই পিডিপি নেতা।

এক সর্বভারতীয় বৈদ্যুতিন সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া প্রতিক্রিয়ায় সুরিন্দর চৌধুরী জানান, “জম্মুর একটা প্রাচীন সমৃদ্ধ ঐতিহ্য আছে। আমরা দেশের জন্য আত্মত্যাগ করেছি। বহিরাগতরা এখানে এলে ধর্ষণের মতো অপরাধ বেড়ে যাবে। ওঁরা এলে আমাদের জীবিকা ছিনিয়ে নেবে। এটা তো মহারাষ্ট্র, অসমের মানুষরাও বলেন।” তিনি আরও বলেন, “জম্মু এখন শান্ত এলাকা। আমাদের মেয়েরা দূর-দূর গ্রাম থেকে এখানে পড়তে আসে। কিন্তু দেখুন বাইরে কী হচ্ছে। ফরিদাবাদে গুলি করে মেরে দেওয়া হল। হাথরাসে ধর্ষণ হচ্ছে। সংবাদমাধ্যমে তো সবই দেখানো হয়। ক্রমশ ধর্ষণের সংখ্যা বাড়ছে।” তাঁর এই মন্তব্য প্রকাশ্যে আসতেই তীব্র নিন্দার মুখে পড়েন ওই বর্ষীয়ান নেতা। সমালোচনার মুখে সুরিন্দর চৌধুরী  বলেন, “বহিরাগতরা এলে ধর্ষণ বাড়বে, এটা আমি বলতে চাই নি। আমার কথার অপব্যাখা করা হচ্ছে।”

[আরও পড়ুন : আরও বিপাকে টুইটার, মানচিত্র কাণ্ডে সংস্থার জবাবে সন্তুষ্ট নয় যৌথ সংসদীয় কমিটি]

২০১৯ সালের পাঁচ আগস্ট জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার করা হয়েছিল। আর তারপরই সেখানকার জমি সংক্রান্ত তথ্য জানতে ইন্টারনেট ঘেঁটে ফেলেছিলেন প্রচুর মানুষ। কিন্তু, সেসময় কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে এই বিষয়ে কী করতে হবে তা নিয়ে নির্দেশিকা জারি না হওয়ায় সবকিছু আলোচনার স্তরেই ছিল। মঙ্গলবার সেই সমস্ত আলোচনার অবসান ঘটিয়ে নির্দেশিকা জারি করল কেন্দ্রীয় সরকার। কীভাবে ভারতের যেকোনও নাগরিক লাদাখ এবং জম্মু ও কাশ্মীরে জমি কিনতে পারবে সেই সংক্রান্ত আইনের নোটিস প্রকাশ করল। কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের কথা জানার পরেই এর তীব্র বিরোধিতা করেছেন কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লা। তিনি টুইট করেন, এই সিদ্ধান্ত অত্যন্ত অপ্রত্যাশিত। জম্মু ও কাশ্মীরকে বিক্রি করে দেওয়া চক্রান্ত করছে কেন্দ্র সরকার।

[আরও পড়ুন : খুন করার পর নির্লিপ্তভাবে সদ্যোমৃতের ছবি তুলছে খুনি! ভিডিও দেখে স্তম্ভিত নেটদুনিয়া]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement