BREAKING NEWS

১ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘অবশেষে মুক্তি’, ৩৬০ দিন পর গৃহবন্দি দশা কাটল কাশ্মীরি নেতা সাজাদ লোনের

Published by: Paramita Paul |    Posted: July 31, 2020 3:16 pm|    Updated: July 31, 2020 5:11 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: অবশেষে মুক্তির স্বাদ! ৩৬০ দিন পর গৃহবন্দী অবস্থা থেকে মুক্তি পেলেন জম্মু ও কাশ্মীরের (Kashmir) পিপলস কনফারেন্স নেতা সাজাদ লোন (Sajad Lone)। গত বছর আগস্ট মাসে ৩৭০ ধারা (Article 370) বাতিলের মাধ্যমে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বিলোপ করা হয়। ভূস্বর্গের একাধিক নেতা-নেত্রী  কেন্দ্রের এই পদক্ষেপের বিরোধিতা করেছিলেন। অশান্তি এড়াতে তাঁদের কার্যত গৃহবন্দী করে রেখেছিল প্রশাসন। আগামী মাসেই ৩৭০ ধারা অবলুপ্তির বর্ষপূর্তি। তার আগেই পিপলস কনফারেন্স (People’s Conference) নেতা সাজ্জাদ লোনকে মুক্তি দেওয়া হল। কিন্তু এখনও বন্দী পিডিপি (PDP) নেত্রী মেহবুবা মুফতি। এদিনই জননিরাপত্তা আইনে তাঁর বন্দিদশা আরও তিন মাসের জন্য বাড়িয়ে দেওয়া হল। 

এদিন প্রশাসনের তরফে তাঁকে মুক্তি দেওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়। মুক্তির স্বাদ পেয়েই এদিন টুইটারে সাজ্জাদ লেখেন, “অবশেষে সরকারিভাবে আমি মুক্ত। পাঁচদিন কম এক বছর বন্দিদশা কাটালাম। তবে এই প্রথম জেলবন্দি হলাম, তা নয়। এর আগে শারীরিকভাবে অত্যাচারের শিকার হয়েছিলাম। কিন্তু এবার মানসিকভাবে বিধ্বস্ত। অনেক কিছু বলার আছে। আশা করি খুব শীঘ্রই তা ভাগ করে নিতে পারব।” প্রসঙ্গত. সাজাদকে প্রথম ৬ মাসের জন্য রাখা হয়েছিল এমএলএ হোস্টেলে। পরে সরকারি নিবাসে রাখা হয়।

[আরও পড়ুন : ৬০ শতাংশ পরামর্শই মানা হয়েছে, নয়া শিক্ষানীতির ভূয়সী প্রশংসা আরএসএসের শিক্ষক সংগঠনের]

সাজাদ কাশ্মীরে পিডিপি-বিজেপি সরকারের মন্ত্রী ছিলেন। কিন্তু ৩৭০ ধারা বিলোপের তীব্র বিরোধিতা করেন। এরপরই তাঁকে গৃহবন্দী করা হয়। প্রসঙ্গত, ২৪ মার্চ ওমর আবদুল্লা প্রায় আট মাস বন্দীদশার পরে মুক্তি পান। তার আগের দিন অর্থাৎ ২৩ মার্চ মুক্তি দেওয়া হয় ওমরের বাবা এবং প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ফারুক আবদুল্লাকেও। তবে আরেক প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি এখনও আটক রয়েছেন। 

[আরও পড়ুন : সন্ত্রাসে মদত থেকে নজর ঘোরাতেই ভারত বিরোধিতা পাকিস্তানের, অভিযোগ নয়াদিল্লির]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement