BREAKING NEWS

০৫ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৯  শুক্রবার ২০ মে ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

হাজিরা নিয়ে প্রশ্ন তোলায় ‘শাস্তি’! ছাত্রীর পা ছুঁতে বাধ্য হলেন কলেজের অধ্যক্ষা, কাঠগড়ায় ABVP

Published by: Kishore Ghosh |    Posted: May 14, 2022 4:58 pm|    Updated: May 14, 2022 4:58 pm

principal forced to touch feet of student in a Gujarat college | Sangbad Pratidin

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সাধারণত শিক্ষকের পা ছুঁতে দেখা যায় ছাত্রছাত্রীদের। এক্ষেত্রে দেখা গেল উলটো ঘটনা। ছাত্রীর সামনে প্রথমে হাতজোড় করে গুজরাটের (Gujarat) একটি পলিটেকনিক কলেজের অধ্যক্ষা। পরে তিনি ছাত্রীর পা ছুঁলেন! হাজির নিয়ে প্রশ্ন তোলায় এই কাজ করতে তাঁকে বাধ্য করা হয় বলে অভিযোগ। গোটা ঘটনায় অভিযুক্ত গেরুয়া ছাত্র সংগঠন অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদের (ABVP) এক নেতা। এদিকে নেট মাধ্যমে এই ঘটনার ভিডিও ভাইরাল হতেই নিন্দায় সরব হয়েছে বিভিন্ন মহল। গেরুয়া শিবিরের ছাত্র সংগঠনের বিরুদ্ধে সরব কংগ্রেসের ছাত্র সংগঠন ন্যাশনাল স্টুডেন্টস ইউনিয়ন অব ইন্ডিয়া।

জানা গিয়েছে, ঘটনাটি আমেদাবাদের এসএএল ডিপ্লোমা কলেজের। গত বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় বর্ষের এক ছাত্রীর হাজিরা নিয়ে অধ্যক্ষার সঙ্গে বচসা বাধে এভিবিপি নেতা অক্ষত জয়সওয়ালের। যার পর অধ্যক্ষা ছাত্রীর কাছে ক্ষমা চাইতে বাধ্য হন। ভাইরাল ভিডিওটিতে দেখা গিয়েছে, অক্ষত-সহ বেশ কয়েকজন এবিভিপি সদস্য অধ্যক্ষা মণিকা স্বামীর ঘরে ঢুকে তাঁর সঙ্গে তর্কাতর্কি করছেন। একটা সময় অধ্যক্ষা ছাত্রীর কাছে ক্ষমা চান। প্রথমে হাতজোড় করে, পরে ওই ছাত্রীর পা ছুঁতেও দেখা যায় অধ্যক্ষাকে।

[আরও পড়ুন: অমৃতসরের সরকারি হাসপাতালে দাউদাউ আগুন, বড়সড় ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা]

এদিকে অধ্যক্ষার হেনস্তার ভিডিও ভাইরাল হতেই নিন্দায় সরব হয়েছে শিক্ষামহল থেকে নেটিজেন। ঘটনায় গেরুয়া শিবিরকে এক হাত নিয়েছে কংগ্রেসের (Congress) ছাত্র সংগঠন ন্যাশনাল স্টুডেন্টস ইউনিয়ন অব ইন্ডিয়া। একটি বিবৃতিতে তারা জানিয়েছে, এবিভিপির এই কাজ লজ্জাজনক। এনএসইউআইয়ের (NSUI) আহ্বায়ক ভাবিক সোলাঙ্কি বলেন, “এভিবিপি কর্মীরা কীভাবে গুন্ডাগিরি করে এটা তার উদাহরণ।” যদিও শুক্রবার একটি বিবৃতিতে এই ঘটনার জন্য এবিভিপির তরফে ক্ষমা চাওয়া হয়।

[আরও পড়ুন: তিরিশ বছরের শিক্ষকতা জীবনে ৬০ ছাত্রীর শ্লীলতাহানি! গ্রেপ্তার কেরলের সিপিএম নেতা]

গেরুয়া শিবির নিজেদের বিবৃতিতে জানিয়েছে, “ছাত্র-শিক্ষকের পবিত্র সম্পর্কে বিশ্বাস করে এবিভিপি। অক্ষত জয়সওয়ালের আচরণকে সমর্থন করে না সংগঠন। অক্ষত অন্যায় আচরণ করেছেন। এই কারণে তাঁকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।”

এদিকে যিনি হেনস্তা হয়েছেন সেই অধ্যক্ষা মণিকা স্বামী জানিয়েছেন, “এর আগেও অক্ষত ক্যাম্পাসে ঝামেলা পাকিয়েছে। তবে বৃহস্পতিবারের ওই ঘটনার ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর এবিভিপির কয়েকজন সিনিয়র নেতা আমার কাছে ক্ষমা চান।”

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে