BREAKING NEWS

২৮ শ্রাবণ  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১৩ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

‘যোগ্য জবাব দেবে মানুষ’, প্যাসেঞ্জার ট্রেনের ‘বেসরকারিকরণ’ নিয়ে মোদিকে তোপ রাহুলের

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: July 2, 2020 5:31 pm|    Updated: July 2, 2020 5:39 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ১০৯ টি রুটের প্যাসেঞ্জার ট্রেনের তথাকথিত ‘বেসরকারিকরণ’ নিয়ে এবার মোদি সরকারকে কাঠগড়ায় তুললেন প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী (Rahul Gandhi)। কংগ্রেস নেতার হুঁশিয়ারি, এই ধরনের কোনও পদক্ষেপ করলে ফলাফল খুব একটা ভাল হবে না। রাহুলের কথায়, দেশের গরিব মানুষের ‘লাইফলাইন’ হল রেল। সরকার তা কেড়ে নিতে চাইলে মানুষই তাঁদের যোগ্য জবাব দেবে।

২০১৪ সালে ক্ষমতায় আসার পর থেকেই বিকেন্দ্রীকরণের দিকে নজর দিয়েছে কেন্দ্রের বিজেপি (BJP) সরকার। গত ৬ বছরে একের পর এক রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থায় বেসরকারি বিনিয়োগ আহ্বান করেছে কেন্দ্র। বুধবারই প্রথমবার রেলে বেসরকারি বিনিয়োগ আহ্বান করা হয়েছে। বিরোধীদের অভিযোগ, এবার ধীরে ধীরে দেশের ‘লাইফলাইন’ রেলকেও (Indian Railways) বেসরকারি সংস্থার নিয়ন্ত্রণে পাঠাতে চাইছেন প্রধানমন্ত্রী। আর বুধবারই সেই প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। বুধবার রেলমন্ত্রকের তরফে একটি বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়েছে, এবার ১০৯ টি রুটে বেসরকারি সংস্থার সাহায্য নিয়ে ১৫১ টি প্যাসেঞ্জার ট্রেন চালানো হবে। এবং সেই উদ্দেশ্যে দ্রুত টেন্ডারও ডাকা হবে। সূত্রের খবর, বেসরকারি লগ্নি বাবদ ৩০ হাজার কোটি টাকা আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নিয়েছে রেলমন্ত্রক। তাই বেসরকারি সংস্থার কাছ থেকে যোগ্যতাপত্রের ভিত্তিতে টেন্ডার ডাকা হচ্ছে। এই ১৫১টি প্যাসেঞ্জার ট্রেনের রক্ষণাবেক্ষণের ভার এবং রোজগারের নিয়ন্ত্রণ, সবটাই থাকবে বেসরকারি সংস্থার হাতে।

[আরও পড়ুন: এবার আধাসেনায় যোগ দিতে পারবেন তৃতীয় লিঙ্গের মানুষও, যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত কেন্দ্রের]

সরকারের এই বিকেন্দ্রীকরণের সিদ্ধান্তে রীতিমতো ক্ষুব্ধ রাহুল। এক টুইটে রেলের বেসরকারিকরণের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে কংগ্রেস নেতা বলছেন,”রেল দেশের গরিব মানুষের লাইফলাইন। আর সরকার সেটাই তাঁদের কাছ থেকে কেড়ে নিতে চাইছে। আপনারা যা খুশি কেড়ে নিন। কিন্তু মনে রাখবেন, মানুষ কিন্তু আপনাদের যোগ্য জবাব দেবে।” উল্লেখ্য, সম্প্রতি করোনা এবং লাদাখ ইস্যুতে নিয়মিত সরকারকে কাঠগড়ায় তুলে যাচ্ছেন রাহুল। সোশ্যাল মিডিয়ায় আগের থেকে তাঁর সক্রিয়তা অনেক বেশি। তাই রেলের বেসরকারিকরণের মতো ইস্যুতে তিনি যে সরব হবেন, তা হয়তো প্রত্যাশিতই ছিল।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement