BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘আমার অভিশাপেই মৃত্যু হেমন্ত কারকারের’, বিতর্কিত মন্তব্য সাধ্বী প্রজ্ঞার

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: April 19, 2019 4:15 pm|    Updated: April 28, 2019 12:06 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ২৬/১১ মুম্বই হামলায় শহিদ মহারাষ্ট্রের প্রাক্তন এটিএস প্রধান হেমন্ত কারকারের মৃত্যু হয়েছিল তাঁর অভিশাপে। বৃহস্পতিবার এই মন্তব্য করলেন ভোপালের বিজেপি প্রার্থী সাধ্বী প্রজ্ঞা ঠাকুর। বিজেপিতে যোগদান থেকে ভোপাল লোকসভা আসনে কংগ্রেসের দিগ্বিজয় সিংয়ের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নামা। কয়েকদিন ধরেই দেশের সংবাদমাধ্যমগুলির শিরোনামে জায়গা করে নিয়েছিলেন ২০০৮ সালে মালেগাঁও বিস্ফোরণে অভিযুক্ত সাধ্বী প্রজ্ঞা। এবার প্রচার করতে নেমে মুম্বই জঙ্গি হামলায় শহিদ হেমন্ত তাঁর অভিশাপের জেরেই প্রাণ হারিয়েছিলেন বলে মন্তব্য করলেন তিনি। আর এরপরই সমালোচনা শুরু হয়েছে দেশজুড়ে।

[আরও পড়ুন-ইতিহাস গড়ার দৌড়ে অমিত, গান্ধীনগরে প্রবল গেরুয়া হাওয়া]

বৃহস্পতিবার মধ্যপ্রদেশের ভোপালে আয়োজিত কর্মিসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে মালেগাঁও বিস্ফোরণ মামলায় জেলবন্দি থাকার প্রসঙ্গ টেনে আনেন প্রজ্ঞা। কাঁদতে কাঁদতে অভিযোগ করেন, জেল হেফাজতে থাকাকালীন তাঁর উপর কীভাবে অত্যাচার করা হয়েছিল তা নিয়েও। আর এই প্রসঙ্গে কথা বলতে বলতেই মুম্বইয়ের প্রাক্তন এটিএস প্রধান ও অশোকচক্র প্রাপ্ত হেমন্ত কারকারের কথা উল্লেখ করেন তিনি।

[আরও পড়ুন-গুজরাটে জনসভার মঞ্চে চড় খেলেন হার্দিক প্যাটেল, হতভম্ব কংগ্রেস নেতা]

বলেন, “মালেগাঁও বিস্ফোরণের ঘটনায় আমাকে দোষী প্রমাণিত করার জন্য উঠে পড়ে লেগেছিলেন কারকারে। পরে জেল হেফাজতে থাকার সময় আমাকে দোষ স্বীকার করানোর জন্য অকথ্য অত্যাচারের পাশাপাশি হুমকিও দিতেন উনি। তখনই তাঁকে আমি সাবধান করেছিলাম যে, এই ব্যবহারের জন্য আপনার সর্বনাশ হবে। আর তার কিছুদিনের মধ্যে জঙ্গিদের গুলিতে মারা যান হেমন্ত কারকারে। আসলে আমি যখন জেলে গিয়েছিলাম তখনই অশুভ সময় শুরু হয়েছিল ওনার। আর তার ঠিক ৪৫ দিন পর ওনার মৃত্যুর মধ্যে দিয়ে তা শেষ হয়।”

[আরও পড়ুন-মোদির কপ্টারে তল্লাশির জেরে বরখাস্ত আমলা, বিতর্ক রাজনৈতিক মহলে]

সাধ্বী প্রজ্ঞা ঠাকুরের এই বিতর্কিত মন্তব্য সম্পর্কে প্রথমে কিছু বলতে চাননি ভোপালের কংগ্রেস প্রার্থী ও মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী দিগ্বিজয় সিং। যদিও পরে বলেন, “নির্বাচন কমিশনের তরফে স্পষ্টভাবে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল যে সেনা ও শহিদদের নিয়ে কোনওরকম রাজনৈতিক মন্তব্য করা যাবে না। আর হেমন্ত কারকারেজি একজন সৎ ও কর্তব্যে অবিচল মানুষ ছিলেন যিনি সন্ত্রাসবাদী হামলার সময় মুম্বইয়ের মানুষকে বাঁচাতে গিয়ে আত্মবলিদান দিয়েছিলেন।”

এবিষয়ে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ দায়ের হওয়ার পরেই নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। মধ্যপ্রদেশের মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিক জানান, মুম্বইয়ের প্রাক্তন এটিএস প্রধান হেমন্ত কারকারে সম্পর্কে ভোপালের বিজেপি প্রার্থী যে মন্তব্য করেছেন তা নিয়ে একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement