BREAKING NEWS

১২ মাঘ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৬ জানুয়ারি ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

অতিমারী মোকাবিলায় অবদানের স্বীকৃতি, এশিয়ার সেরা ছয়ে সেরাম কর্তা আদর পুনাওয়ালা

Published by: Biswadip Dey |    Posted: December 5, 2020 2:20 pm|    Updated: December 5, 2020 2:20 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বছরের সেরা ছয় এশীয়র তালিকায় জায়গা করে নিলেন ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটের (Serum Institute) চিফ এগজিকিউটিভ অফিসার আদর পুনাওয়ালা (Adar Poonawalla)। সিঙ্গাপুরের একটি দৈনিকে  জনপ্রিয়তার নিরিখে এশিয়ার সেরা ব্যক্তিত্বদের নামের তালিক প্রকাশিত হয়েছে। অতিমারী মোকাবিলায় যাঁরা অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন, এ বছর তাঁদেরই স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে সেরা ব্যক্তিত্ব নির্বাচনে। আর তাতেই জায়গা করে নিলেন বিশ্বের বৃহত্তম করোনা ভ্যাকসিন (corona vaccine) নির্মাতা সেরাম ইনস্টিটিউটের কর্তা ৩৯ বছরের আদর পুনাওয়ালা।

পুনের এই সংস্থা অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে চুক্তি করে তাদের আবিষ্কৃত ফর্মুলা মেনে কোভিশিল্ড (Covidshield) ভ্যাকসিন তৈরি করছে। ভারতে ট্রায়াল পর্বে রয়েছে সেটি। এরই মধ্যে প্রবল চাহিদা তৈরি হয়েছে এই ভ্যাকসিনের। 

[আরও পড়ুন: ‘যোগী-শাহ যেখানে প্রচার করবেন সেখানেই হারবে বিজেপি’, হায়দরাবাদ নিয়ে কটাক্ষ ওয়েইসির]

তালিকায় বাকিদের মধ্যে দু’জন চিনের বাসিন্দা। বাকিরা দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান ও সিঙ্গাপুরের। প্রত্যেকেই করোনা অতিমারী মোকাবিলায় ভাল কাজ করেছে। তাঁদের সেই অবদানের কথা মাথায় রেখে অন্যান্য বছরের থেকে আলাদাভাবে সেরার তালিকা তৈরি করেছে সিঙ্গাপুরের এই দৈনিক।

তাদের তরফে জানানো হয়েছে, ‘‘আমরা আপনাদের সাহস, সংকল্প ও সৃষ্টিশীলতাকে স্যালুট জানাই। এই সংকটময় মুহূর্তে আপনারাই এশিয়া তথা বিশ্বের আশার প্রতীক।’’ তালিকার সকলকে রীতিমতো নায়কের সম্মান দিয়ে জানানো হয়েছে, যেভাবে তাঁরা নিজেদের সাধ্যমতো মারণ ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করছেন তা প্রশংসনীয়।

[আরও পড়ুন: ‌কৃষক বিক্ষোভের মাঝেই আত্মহত্যা, যোগীরাজ্যে জলাশয় থেকে উদ্ধার চাষির দেহ]

প্রসঙ্গত, ১৯৬৬ সালে সেরাম ইনস্টিটিউটের প্রতিষ্ঠা করেন আদর পুনাওয়ালার বাবা সাইরাস পুনাওয়ালা। ২০০১ সালে সংস্থায় যোগ দেন আদর। পরে ২০১১ সালে তিনি সংস্থার সিইও হন। তিনি জানিয়ে দিয়েছেন, তাঁর সংস্থার তৈরি কোভিড ভ্যাকসিন (COVID vaccine) নিম্ন ও মাঝারি আয়ের দেশগুলিতে সরবরাহ করা হবে। তাঁর মতে, এই দেশগুলির পক্ষে প্রতিযোগিতার ইঁদুরদৌড়ের মধ্যে থেকে ভ্যাকসিন জোগাড় করা কঠিন। তাই তাঁর সংস্থা তাদের পাশে দাঁড়ানোর কথা ভেবেছে।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement