Advertisement
Advertisement
স্মৃতি ইরানি

পটচিত্রে করোনা যোদ্ধাদের কুর্নিশ বাঙালি পটুয়ার, ভিডিও শেয়ার করে ভূয়সী প্রশংসা স্মৃতির

করোনার উপসর্গ, লকডাউনের কথাও উঠে এসেছে পটচিত্রে।

Smriti Irani shares video of Patchitra on Corona Warriors
Published by: Bishakha Pal
  • Posted:May 29, 2020 4:49 pm
  • Updated:May 29, 2020 4:49 pm

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিশ্বজুড়ে জাল বিস্তার করেছে প্রাণঘাতী ভাইরাস করোনা। এর সংক্রমণ আটকাতে বিশেষজ্ঞদের মত অনুসারে একাধিক পদক্ষেপ নিয়েছে প্রশাসন। চলছে লকডাউন এবং সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা। ব্যতিক্রম নয় পশ্চিমবঙ্গও। এখানেও পুরোদমে চলছে সচেতনতা প্রচার। শহরের মানুষ তো বটেই। গ্রামের মানুষও সচেতনতা প্রচারে এগিয়ে এসেছে। বাংলার লোকশিল্প ও লোকসংগীতে উঠে এসেছে করোনার কথা। তেমনই একটি পটুয়ার পটচিত্র ও লোকগানের ভিডিও শেয়ার করে তাঁর ভূয়সী প্রশংসা করলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি।

বাংলায় পটচিত্রের শিল্পীরা পটুয়া নামে পরিচিত। ক্যানভাসের মধ্যে বিভিন্ন পৌরাণিক, সামাজিক ও ঐতিহাসিক কাহিনি আঁকেন তাঁরা। এখন, যখন গোটা বিশ্ব করোনায় আক্রান্ত, তখন করোনার চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সামাজিক বিষয় আর কী হতে পারে? তাই বাংলার এক পটুয়া তাঁর পটচিত্র তুলে ধরেছেন করোনা কথা। এই নিয়ে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে নেটদুনিয়ায়। সেই ভিডিওটিই শেয়ার করেছে স্মৃতি ইরানি। ক্যাপশনে লিখেছেন, পশ্চিমবঙ্গের নয়া গ্রামের একজন মহিলা পটুয়া তাঁর পটচিত্রে করোনার প্রভাব এঁকেছেন। করোনা যোদ্ধাদের প্রতি কৃতজ্ঞতাও প্রকাশ করেছেন তিনি।

Advertisement

[ আর ওপড়ুন: ‘চিনের ভাষাতেই ওদের জবাব দিন’, ড্রাগনের ষড়যন্ত্র নিয়ে সরব সোনম ওয়াংচুক ]

ভিডিওয় দেখা গিয়েছে, পটচিত্রে সারা পৃথিবীর করোনা পরিস্থিতি তুলে ধরা হয়েছে। করোনার উপসর্গগুলিও ছবির মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে পটচিত্রে। এছাড়া আঁকায় উঠে এসেছে লকডাউনের কথা। চিকিৎসকরা যে অক্লান্ত পরিশ্রম করে রোগীদের সুস্থ করছেন, তার কথাও স্থান পেয়েছে চিত্রে। আঁকা হয়েছে বিজ্ঞানীদের করোনার ওষুধ আবিষ্কারের জন্য অবিরাম চেষ্টার ছবিও। ভিডিওয় পটুয়া বলেছেন, করোনা থেকে বাঁচতে একমাত্র উপায় লকডাউন। আমরা যদি প্রশাসনের নির্দেশ ঠিকমতো মেনে চলি, তবেই করোনামুক্ত হওয়া সম্ভব। এছাড়া ভিডিওয় পটুয়ার মুখে একটি লোকগীতিও শোনা গিয়েছে। আরও এক পটুয়া ভিডিওয় জানিয়েছেন, লকডাউনে তাঁদের পরিস্থিতি অত্যন্ত খারাপ। বিক্রি নেই। ফলে কতদিন সঞ্চিত অর্থ ও রেশনে চলবে, তা তাঁরা জানেন না। অনেকে তাঁদের অনুদান দিয়েছে। কিন্তু এভাবে কতদিন? এই পরিস্থিত যে খুব বেশিদিন যে চলবে না, তা নিশ্চিতভাবেই জানিয়েছেন তিনি। তাই তাঁর প্রার্থনা, সবকিছু যেন আবার আগের মতো হয়ে যায়। বিশ্ব যেন হয়ে ওঠে করোনামুক্ত।

Advertisement

[ আরও পড়ুন: প্রয়াত ছত্তিশগড়ের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অজিত যোগী, টুইট করে দুঃসংবাদ দিলেন পুত্র ]

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ