৪ শ্রাবণ  ১৪২৬  শনিবার ২০ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিপাকে বলিউড অভিনেতা তথা সাংসদ সানি দেওল। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ, নির্বাচনী প্রচারে মাত্রাতিরিক্ত খরচ করে ফেলেছেন তিনি। যার জেরে সাংসদ পদ খোয়াতে পারেন গুরদাসপুরের নবনির্বাচিত সাংসদ সানি দেওল।

[আরও পড়ুন:  হার্দিকের সঙ্গে ছবি তুলে হুমকির মুখে রণবীর সিং, কিন্তু কেন?]

ভোটের মরশুম শেষ। ফের মসনদে মোদি। গোটা দেশজুড়ে মোদির জয়-জয়কার হলেও গেরুয়া শিবিরের সানি পড়েছেন জোর বিপাকে। কারণ, আশঙ্কায় তাঁর সাংসদ পদ। ইতিমধ্যে বলিউড অভিনেতা তথা সাংসদকে নোটিস পাঠানো হয়েছে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে কড়া শাস্তির মুখে পড়তে পারেন সানি। এমনটাই মনে করছেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ। এমনকী, শাস্তিস্বরূপ খোয়াতে পারেন তাঁর সাংসদ পদও। প্রসঙ্গত, প্রত্যেক প্রার্থীর প্রচারের জন্যই নির্দিষ্ট খরচ বেঁধে দেওয়া থাকে নির্বাচন কমিশনের তরফে। এক জন প্রার্থী ৭০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত খরচ করতে পারেন। কিন্তু, সানি সেই মাত্রা অতিক্রম করে প্রায় ৮৬ লক্ষ টাকা খরচ করেছেন। এমনটাই জানা গিয়েছে সূত্রের খবরে। এই মর্মে সম্প্রতি একাধিক অভিযোগ জমা পড়েছে কমিশনের কাছে। তার পরই অভিনেতাকে নোটিস পাঠানো হয় কমিশনের তরফে। নির্বাচনী খরচ সংক্রান্ত নিয়মাবলি লঙ্ঘন করলে বিজয়ী প্রার্থীর সাংসদ পদ পর্যন্ত বাতিল করতে পারে কমিশন।

[আরও পড়ুন: কেন্দ্রীয় সরকারের মাদক বিরোধী প্রচারের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর সঞ্জয় দত্ত]

উল্লেখ্য, নির্বাচনের আগে প্রায় অন্তিম মুহূর্তেই বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন সানি দেওল। পাঞ্জাব কংগ্রেসের প্রধান সুনীল জাখরকে ৮০ হাজার ভোটে হারিয়ে গুরদাসপুর থেকে জয়লাভ করেন। এই মঙ্গলবার অর্থাৎ ১৮ জুন সাংসদ হিসাবে শপথ নেন সানি। উল্লেখ্য, সপ্তম দফা নির্বাচনের আগে কমিশনের তরফে বেঁধে দেওয়া সমসয়সীমার বাইরে গিয়ে প্রচার করায় নির্বাচনী বিধিভঙ্গের অভিযোগ উঠেছিল তাঁর বিরুদ্ধে। মা হেমা মালিনিও গেরুয়া শিবিরের প্রার্থী হিসেবে মথুরাপুর থেকে জিতেছেন। পুত্র এবং স্ত্রীর এহেন জয়ে যারপরনাই উচ্ছ্বসিত ধর্মেন্দ্র।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং