২৮ আশ্বিন  ১৪২৬  বুধবার ১৬ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মোদি বিরোধিতা করতে গিয়ে ঘটি-বাটি সব হারানোর পথে চন্দ্রবাবু নায়ডু! লোকসভার আগে মোদিকে হারাতে গোটা দেশ এক করে ফেলেছিলেন টিডিপি সুপ্রিমো। এবার তারই খেসারত দিতে হচ্ছে অন্ধ্রের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীকে। তাঁর উপর আস্থা হারিয়ে দলের রাজ্যসভার ৬ সাংসদের মধ্যে চারজনই যোগ দিলেন বিজেপিতে। সেই সঙ্গে রাজ্যসভায় টিডিপির পুরো পরিষদীয় দলটিকেই বিজেপির সঙ্গে সংযুক্তিকরণের প্রস্তাব দিলেন তাঁরা।

[আরও পড়ুন: সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণের সময় মোবাইলে মগ্ন রাহুল! নিন্দায় সরব বিরোধীরা]

মোদির বিরোধিতা করতে গিয়ে ইতিমধ্যেই অন্ধ্রপ্রদেশের কুরসি খোয়াতে হয়েছে নায়ডুকে। কিন্তু, হার তো দূর উলটে আরও বেশি আসন নিয়ে ক্ষমতায় ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী। সূত্রের খবর, লোকসভার ফলপ্রকাশের পরই দক্ষিণের যে রাজ্যগুলিতে বিজেপি এখনও ঘাঁটি গাড়তে পারেনি সেই রাজ্যগুলিতে সক্রিয় হওয়ার চেষ্টা শুরু করেছেন অমিত শাহ। সেই লক্ষেই অন্ধ্রের টিডিপি সাংসদদের দলে জোটানোর চেষ্টা শুরু করে বিজেপি হাইকম্যান্ড। সাফল্যও মেলে। বৃহস্পতিবার টিডিপির চার রাজ্যসভার সাংসদ বিজেপিতে নাম লেখানোর জন্য অনুমতি চান রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের কাছে। রাষ্ট্রপতি অনুমতি দিলে তাঁরা যান রাজ্যসভার স্পিকার তথা উপরাষ্ট্রপতির কাছে। তারপরই বিজেপি দপ্তরে গিয়ে গেরুয়া শিবিরে নাম লেখান ওয়াইএস চৌধুরি, সিএম রমেশ, টি জি ভেঙ্কটেশ এবং জিএম রাও।

[আরও পড়ুন: রবীন্দ্রনাথের আদর্শে চলবে নতুন ভারত, ১৭তম লোকসভার সূচনায় বার্তা রাষ্ট্রপতির]

এদিকে, লোকসভার পর ছুটি কাটাতে লন্ডন গিয়েছেন চন্দ্রবাবু। দলে ভাঙনের খবর পেয়ে সেখান থেকেই বিবৃতি দেন তিনি। অন্ধ্রের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, বিজেপি টিডিপিকে দুর্বল করার চেষ্টা করছে। রাজ্যের স্বার্থেই তিনি বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াই করা শুরু করেছিলেন। অন্ধ্রকে বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা দিতে তাঁর এই লড়াই। দলের নেতাকর্মীদের হতাশ না হওয়ারও পরামর্শ দিয়েছেন টিডিপি সুপ্রিমো।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং