১৬ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  শুক্রবার ৩ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

‘দেশটা বিক্রি করে দেবে মোদি সরকার’, কর্ণাটকের কৃষকসভায় বিস্ফোরক রাকেশ টিকাইত

Published by: Biswadip Dey |    Posted: March 21, 2021 12:54 pm|    Updated: March 21, 2021 1:24 pm

'The country will be sold', farmer leader Rakesh Tikait urges Karnataka farmers to protest farm laws । Sangbad Pratidin

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিতর্কিত কৃষি আইন (Farm law) নিয়ে দিল্লি সীমান্তে আন্দোলন চালাচ্ছেন কৃষকরা। এবার কর্ণাটকেও (Karnataka) কৃষকদের আন্দোলন শুরু করার ডাক দিলেন ভারতীয় কিষাণ ইউনিয়নের নেতা রাকেশ টিকাইত (Rakesh Tikait)। সেই সঙ্গে আরজি জানালেন, এই ‘কালা কানুনে’র বিরুদ্ধে গর্জে উঠুক দেশের প্রতিটি শহর।

শনিবার কর্ণাটকের শিবামোগায় কৃষকদের সভায় এভাবেই নতুন করে কৃষি আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলনকে গতি দেওয়ার আহ্বান জানালেন বর্ষীয়ান কৃষক নেতা। তাঁর কথায়, ”তিন লক্ষ মানুষ দিল্লি ঘেরাও করেছে। এই লড়াই দীর্ঘ সময় ধরে চলবে। আর এই প্রতিবাদ আমাদের দেশের সব শহরেই দেখাতে হবে। যতদিন না এই তিন কালো আইন প্রত্যাহার করে নেওয়া হয় এবং এমএসপির উপরে আইনটিও কার্যকর না করা হয়।” কর্ণাটকের কৃষকদের উদ্দেশে তাঁর আরজি, ”কর্ণাটকেও আপনাদের প্রতিবাদ শুরু করতে হবে। আপনাদের জমি কেড়ে নেওয়ার ফন্দি করা হচ্ছে। এবার বড় বড় সংস্থাগুলি চাষ করা শুরু করবে। সস্তায় শ্রমিক নিয়োগ করা হবে শ্রম আইনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে।”

[আরও পড়ুন : ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা আক্রান্ত ৪৩ হাজার, অ্যাকটিভ কেস ৩ লক্ষেরও বেশি]

শস্য বিক্রির বিষয়ে রীতিমতো খোঁচা মেরে তিনি বলেন, ”প্রধানমন্ত্রী তো বলেছেন, আপনারা আপনাদের শস্য যে কোনও জায়গায় বিক্রি করতে পারবেন। সেই মতো আপনারাও আপনাদের শস্য নিয়ে যেতে পারেন জেলার কালেক্টরের অফিসেও। পুলিশ যদি আটকায় তাহলে তাদেরই বলুন এমএসপিতে শস্য কিনে নিতে।”

তাঁর সাফ কথা, ”যদি কৃষকরা প্রতিবাদ না করে, এই দেশ বিক্রি হয়ে যাবে। ২০ বছরের মধ্যে আপনারা আপনাদের জমি হারাবেন। প্রায় ২৬টি পাবলিক সেক্টর ইউনিটের বেসরকারিকরণ করা হচ্ছে। এটা আটকাতে আমাদের চেষ্টা করতেই হবে।”

[আরও পড়ুন : মন খারাপ দেশের! ‘খুশির তালিকা’য় ১৩৯তম স্থানে ভারত]

উল্লেখ্য, গত নভেম্বর থেকেই দিল্লি সীমান্তে শুরু হয়েছে কৃষকদের আন্দোলন। সংসদের বাদল অধিবেশনে তিনটি কৃষি বিল (Farm Bill, 2020) পাশ করেছে মোদি সরকার। তা আইনেও পরিণত হয়েছে। কৃষকদের অভিযোগ, ওই আইন চাষিদের স্বার্থ ক্ষুণ্ণ করেছে। বদলে শিল্পপতিদের হাত মজবুত করেছে। সেই আইন প্রত্যাহারের দাবিতে আন্দোলনে নেমেছেন তাঁরা।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে