২ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে প্রথমবার মুখ খুলেই বিতর্কে জড়ালেন কংগ্রেস সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। তাঁর দাবি, কেন্দ্র যেভাবে কাশ্মীরকে দেওয়া বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করেছে তা অসাংবিধানিক এবং অগণতান্ত্রিক। কংগ্রেস সাধারণ সম্পাদকের এই মন্তব্যের তীব্র বিরোধিতা করেছে বিজেপি। গেরুয়া শিবিরের নেতারা বলছেন, কংগ্রেস নেত্রী সরকারের বিরোধিতা করতে গিয়ে দেশবিরোধী কথা বলছেন।

[আরও পড়ুন: মূল স্রোতে ফেরার তাগিদ! ত্রিপুরায় আত্মসমপর্ণ ৮৮ জন জঙ্গির]

কিছুদিন আগেই সোনভদ্রে আক্রান্ত দলিত পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখা করেন প্রিয়াঙ্কা। তখনই জানিয়েছিলেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আবারও সোনভদ্রে যাবেন। সেইমতোই মঙ্গলবার যোগীর রাজ্যে পা রাখেন কংগ্রেস সাধারণ সম্পাদক। সেখানেই ৩৭০ ধারা বিলোপ ইস্যুতে মুখ খোলেন তিনি। কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের পর দীর্ঘদিন নীরব ছিলেন কংগ্রেস সাধারণ সম্পাদক। মুখ খুলে পার্টিলাইনেই কথা বললেন প্রিয়াঙ্কা। বললেন, “যেভাবে এই কাজটা করা হয়েছে তা পুরোপুরি অসাংবিধানিক। এবং গণতন্ত্রের সমস্ত নৈতিকতার বিরোধী। এসব কাজ করতে গেলে কিছু নিয়ম মানতে হয়। যা মানা হয়নি।” এদিকে, প্রিয়াঙ্কাকে প্রশ্ন করতে গিয়ে এক সাংবাদিকের আক্রান্ত হওয়ার ঘটনায় বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিনিধির অভিযোগ, তিনি প্রিয়াঙ্কাকে যখন ৩৭০ ধারা নিয়ে প্রশ্ন করতে যাচ্ছিলেন, তখন এক কংগ্রেস সমর্থক তাঁকে হেনস্তা করে। টুইটারে একটি ভিডিও পোস্ট করেন ওই সাংবাদিক।

 

[আরও পড়ুন: এবার সিকিম! পবন চামলিংয়ের দল থেকে বিজেপিতে যোগ দিলেন ১০ বিধায়ক]

উল্লেখ্য, ৩৭০ ধারা বিলোপের পর কার্যত দ্বিধাবিভিক্ত কংগ্রেস। অধীর চৌধুরি, পি চিদম্বরম, গুলাম নবি আজাদের মতো নেতারা যেখানে এই সিদ্ধান্তের তীব্র বিরোধিতা করেছেন, সেখানে জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া, মিলিন্দ দেওরা, করণ সিংরা সরকারের সিদ্ধান্তকে সমর্থনও করেছেন। যদিও, দল হিসেবে কংগ্রেস এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করারই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এই অবস্থায় মুখ খুলে দাদা এবং মাকেই সমর্থন করলেন প্রিয়াঙ্কা।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং