BREAKING NEWS

১৯ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  সোমবার ৬ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

বন্ধুর মৃত্যুর প্রতিবাদ, জেহাদে নেমে হাতে বন্দুক তুলল কাশ্মীরের যুবক

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: March 22, 2019 5:56 pm|    Updated: March 22, 2019 5:57 pm

To protest against murder of friend, Kashimiri youth joins militance

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: পুলিশ হেফাজতে জম্মু-কাশ্মীরের শিক্ষক মৃত্যুর ঘটনার রেশ কাটেনি এখনও৷ তারই মধ্যে বন্ধুর মৃত্যুর প্রতিবাদে জঙ্গিদলে নাম লেখাল শাহিদ মনজুর নামে এক ব্যক্তি৷ একটি অডিও বার্তা দিয়ে এই খবর জানিয়েছ সে৷ জেহাদের বার্তা দিয়ে স্পষ্টই বলেছে, ‘ভারতীয় সেনাবাহিনীর দমনপীড়ন নীতির প্রতিবাদে একমাত্র জঙ্গিবাদই পন্থা৷ ওদের দাসত্বে দীর্ঘ জীবন কাটানোর চেয়ে একটা সংক্ষিপ্ত জীবন শ্রেয়৷ জানি, বন্দুক হাতে তোলার পর আমার জীবনটা খুব ছোট হয়ে গেল৷ কিন্তু বুঝেছি, ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে দাসত্ব থেকে মুক্ত করতে জেহাদই একমাত্র পথ৷’ শাহিদ মনজুরের এই বার্তায় রাষ্ট্র বিদ্বেষী মনোভাব স্পষ্ট৷ নিজেকে আবার নিহত কাশ্মীরি শিক্ষক রিজওয়ানের বন্ধু বলে দাবি করেছে শাহিদ৷

নাবালককে পণবন্দি করে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে গুলির লড়াই, খতম ২ জঙ্গি

মাসখানেকেরও বেশি সময় আগে পুলওয়ামায় সিআরপিএফ কনভয়ে জঙ্গি হামলার পর থেকে উপত্যকার বিভিন্ন জায়গায় বেড়েছে পুলিশের তল্লাশি, ধরপাকড়৷ সেভাবেই একদিন অবন্তিপোরার বাড়ি থেকে স্থানীয় এক শিক্ষক বছর উনত্রিশের রিজওয়ান আসাদ পণ্ডিতকে তুলে থানায় নিয়ে গিয়েছিল পুলিশ৷ গত রবিবার লকআপে থাকাকালীন তাঁর মৃত্যু হয়৷ মঙ্গলবার মৃতদেহ হাতে পেয়ে পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ তোলেন, পুলিশের অত্যাচারেই তাঁর মৃত্যু হয়েছে৷ এমনকী মৃতদেহ সৎকারের আগে দাদার শরীর আঘাতের সমস্ত চিহ্নের ছবি তুলে রেখেছিল৷ পরে সেসব ছবি তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছেন৷ এসব ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই প্রকাশ্যে এল তাঁর বন্ধু শাহিদ মনজুরের অডিও বার্তা৷ সে আরও বলেছে, ‘আমি চেয়েছিলাম ভালভাবে পড়াশোনা করে মা,বাবার পাশে দাঁড়াব৷ তাই অন্যরা যখন জেহাদ নিয়ে মাথা ঘামাত, আমি তাদের বলতাম, অকারণ সময় নষ্ট করছে৷ কিন্তু আজ বুঝলাম, আমি ভুল ভাবতাম৷ লড়াই করা ছাড়া কোনও বিকল্প নেই নিজেদের মুক্ত করার৷’ মা, বাবার প্রতি বার্তা দিয়ে শাহিদ বলেছে, ‘দুঃখিত, আমি এভাবে তোমাদের ছেড়ে চলে যাচ্ছি৷ তোমাদের অনুমতিও নিতে পারিনি৷ কিন্তু এছাড়া আমার আর উপায় ছিল না৷ রিজওয়ানকে দেখার পর আমি আর দ্বিতীয় কোনও বিকল্প খুঁজে পেলাম না৷’

ধ্বংসস্তূপে ৬২ ঘণ্টা, মৃত্যুকে হারিয়ে ফিরলেন কর্ণাটকের যুবক

সেনাবাহিনী এবং পুলিশের বিরুদ্ধে যাবতীয় ক্ষোভ উগরে দিয়েছে শাহিদ মনজুর৷ কীভাবে মিথ্যে সন্দেহে আগে তাদের উপর অত্যাচার চালানো হয়েছিল, তাও জানিয়েছে৷ জঙ্গিদের ইনফর্মার হিসেবে তাদের ধরে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল৷ শাহিদের কথায়, ‘তখন প্রতিবাদ করেও লাভ হয়নি৷ রিজওয়ানকে ওদের হেফাজতে মরতে হয়েছে৷ আমিও সহিংস পথেই প্রতিশোধ নেব৷’ অশান্ত জম্মু-কাশ্মীরে এভাবে শিক্ষিত যুবকদের জেহাদি সংগঠনে নাম লেখানোর হিড়িক বাড়তে থাকা নিঃসন্দেহে প্রশাসনের কপালে চিন্তার ভাঁজ আরও চওড়া করছে৷

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে