BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

শিবঠাকুরের জন্ম দিয়েছেন তিনি, দাবি সন্ন্যাসিনীর!

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: June 26, 2016 6:21 pm|    Updated: June 26, 2016 6:21 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সুপার বিকিনি মডেল থেকে যখন সন্ন্যাসিনী অবতারে ধরা দিলেন সোফিয়া হায়াত, থুড়ি গাইয়া মাদার সোফিয়া, তখনই শোরগোল পড়ে গিয়েছিল!
এবার সেই ডামাডোল আরও বাড়ল সন্ন্যাসিনীর একটি মন্তব্যে। তৈরি হল রীতিমতো বিতর্কও!
সম্প্রতি গাইয়া মাদার সোফিয়া বেরিয়েছিলেন তীর্থভ্রমণে। তীর্থযাত্রায় অর্জন করতে চেয়েছিলেন মনের শান্তি, খুঁজতে চেয়েছিলেন মোক্ষলাভের পথ ও পন্থা। সেই উদ্দেশ্যেই গাইয়া মাদার সোফিয়া পৌঁছেছিলেন ঔরঙ্গাবাদের কৈলাস মন্দিরে।

sofia1_web
সেই মন্দির পরিক্রমা শেষেই সন্ন্যাসিনীর দাবি, তিনি ভগবান শিবকে জন্ম দিয়েছিলেন!
কৈলাস মন্দির পরিক্রমা শেষে নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে মন্দির পরিক্রমা এবং তীর্থযাত্রার কিছু ছবি পোস্ট করেছেন গাইয়া মাদার সোফিয়া। সঙ্গে যা লিখেছেন, তা পড়ে যে কারও চোখ কপালে উঠতে বাধ্য!
”ঔরঙ্গাবাদের কৈলাস মন্দির অতি জাগ্রত! আমি নিশ্বাস নিতেও ভুলে গিয়েছিলাম! আমি উপলব্ধি করি, শিবলিঙ্গ থেকে এক শক্তিস্রোত আমার কপালের মধ্যে দিয়ে সারা শরীরে প্রবেশ করছে। প্রায় ঘণ্টাখানেক আমার সারা শরীর থরথর করে কাঁপতে থাকে! আমি শিবলিঙ্গ থেকে মাথা তুলতে পারছিলাম না, কোনও এক অজ্ঞাত চৌম্বকীয় শক্তিতে আমার মাথা শিবলিঙ্গের সঙ্গে আটকিয়েই ছিল। একটা মহান কিছু ঘটে চলেছিল আমার সঙ্গে। ওম নমঃ শিবায়! আমার শরীরে আমি স্পষ্ট এক পরিবর্তন অনুভব করছিলাম। বুঝতে পারছিলাম, আমি স্বয়ং শিবের জন্মদাত্রী। আজ তিনি আবার ফিরে এলেন এবং ঠাঁই নিলেন আমার শরীরের অভ্যন্তরে। আমি ফের আমার ঐশ্বরিক সত্ত্বায় ফিরে এসেছি। ফিরে এসেছেন ভগবানও! আমার মধ্যে যে শক্তি বিরাজ করছে, তা তুলনাহীন। স্বয়ং শিব অধিষ্ঠান করছেন আমার মধ্যে”, লিখেছেন গাইয়া মাদার সোফিয়া!

sofia2_web
বলাই বাহুল্য, এই দীর্ঘ বক্তব্যের মধ্যে লুকিয়ে রয়েছে কিছু রহস্য। সন্ন্যাসিনী দাবি করেছেন, তিনি শিবের জন্ম দিয়েছেন। কিন্তু এটা কোন সময়ের ঘটনা, তা তিনি উল্লেখ করেননি। কী ভাবে তা সম্ভব হয়েছিল, তারও কোনও ব্যাখ্যা দেননি তিনি।
আপাতত, সবাই বিহ্বল হয়ে গিয়েছেন সন্ন্যাসিনীর এই বক্তব্যে। কী ভাবে এমন দাবি তিনি করতে পারেন, তাই নিয়েই জমাট বাধছে রহস্য!

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement