BREAKING NEWS

৪ মাঘ  ১৪২৮  মঙ্গলবার ১৮ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

ইতিহাস গড়ে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ উদ্ধব ঠাকরের

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: November 28, 2019 7:03 pm|    Updated: November 28, 2019 7:09 pm

Uddhav Thackeray takes oath as Chief Minister of Maharashtra

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মধ্য মুম্বইয়ের শিবাজি পার্কে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন শিব সেনা উদ্ধব ঠাকরে। তাঁর সঙ্গে কংগ্রেস, এনসিপি ও শিব সেনা থেকে আরও ছজন মন্ত্রী শপথ নিলেন। তাঁরা হলেন একনাথ শিন্ডে, জয়ন্ত পাটিল, সুভাষ রাজারাম দেশাই, ছগন ভুজবল, নীতীন রাউত ও বালাসাহেব থোরাট। বৃহস্পতিবার সন্ধে ঠিক ৬ টা ৪০ মিনিট নাগাদ নতুন মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন উদ্ধব। এর ফলে বিধানসভা নির্বাচনের আগে থেকে শিব সেনার রাজ্যসভার সাংসদ সঞ্জয় রাউত যে একজন শিব সৈনিক মুখ্যমন্ত্রী হবেন বলে দাবি করছিলেন তা সত্যি হল। আজ এই শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে হাজির হয়েছিলেন ডিএমকে প্রধান এমকে স্টালিন, ডিএমকে নেতা টিআর বালু, কংগ্রেস নেতা আহমেদ প্যাটেল, এনসিপি নেতা প্রফুল্ল প্যাটেল, অজিত পওয়ার ও এমএনএস প্রধান রাজ ঠাকরে-সহ অন্যরা।

[আরও পড়ুন: রিহ্যাব থেকে মুক্তির আশা, সঙ্গিনীকে গলা টিপে খুন দুই মানসিক ভারসাম্যহীন যুবতীর]

মহারাষ্ট্রে বিজেপিকে বাইরে রেখে জোট চূড়ান্ত হওয়ার পরে সেই জোটের নাম দেওয়া হয় মহারাষ্ট্র বিকাশ আগড়ি। সেই জোটের নেতা হিসেবে উদ্ধবকেই মনোনীত করেন ন্যাশনালিস্ট কংগ্রেস পার্টির (এনসিপি) সভাপতি শরদ পওয়ার। তিনি আরও ঘোষণা করেন যে মহারাষ্ট্রের পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন উদ্ধব ঠাকরেই। নিয়ম অনুযায়ী, মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথের ছ’মাসের মধ্যে কোনও একটি কক্ষের সদস্য হতে হবে। তাই এর আগে কোনও নির্বাচনে লড়াই না করা উদ্ধব ঠাকরেকে ছমাসের মধ্যেই এই নিয়ম অনুযায়ী কাজ করতে হবে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, উদ্ধব ঠাকরের আগে ঠাকরে পরিবার থেকে কেউ প্রশাসনিক পদে বসেননি। ২০১৯ সালের আগে কেউ নির্বাচনেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেননি। উদ্ধবের ছেলে আদিত্য এবার ওরলি কেন্দ্র থেকে ভোটে লড়েছেন এবং জিতেছেন।

[আরও পড়ুন: মহারাষ্ট্রের পর ঝাড়খণ্ডেও ধাক্কা! বুথফেরত সমীক্ষা চিন্তা বাড়াচ্ছে বিজেপির]

মধ্য মুম্বইয়ের দাদারে শিবাজি পার্কেই চিরকাল দশেরার দিন বক্তৃতা করে এসেছেন শিব সেনার প্রতিষ্ঠাতা বালাসাহেব ঠাকরে। সেই ধারা বজায় রেখে এসেছেন উদ্ধব নিজেও। শিবাজি পার্কের এক কোণেই শেষকৃত্যে হয়েছে বালাসাহেবের। তাই এই জায়গার প্রতি শিবসৈনিকদের আলাদা আবেগ রয়েছে তো বটেই, অনেকে আবার এই জায়গাটিকে পবিত্র বলেও মনে করেন। অনেকে আবার এই জায়গাটিকে ‘শিবতীর্থ’ বলে ডাকেন।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে