BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ধর্মীয় স্বাধীনতার নিরিখে পাকিস্তানের সঙ্গে তুলনা! মার্কিন কমিশনকে তুলোধোনা ভারতের

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: April 29, 2020 12:15 pm|    Updated: April 29, 2020 12:15 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ভারতে মুসলিমদের ধর্মীয় স্বাধীনতা নিয়ে বারবার সরব হয়েছে আন্তর্জাতিক ধর্মীয় স্বাধীনতা সংক্রান্ত মার্কিন কমিশন United States Commission on International Religious Freedom)। মোদি সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই ভারতে সংখ্যালঘুদের ধর্মীয় স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করা হচ্ছে বলে বারবার অভিযোগ করতে শোনা গিয়েছে এই কমিশনটিকে। এবার আরও এক কাঠি উপরে উঠে ভারতকে পাকিস্তান, উত্তর কোরিয়ার মতো দেশের সঙ্গে তুলনা করল মার্কিন সংস্থাটি। মার্কিন কমিশনের এই সিদ্ধান্তে তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করেছে নয়াদিল্লি।

মঙ্গলবার ধর্মীয় স্বাধীনতার নিরিখে বেশ খানিকটা নামিয়ে দিয়েছে আন্তর্জাতিক ধর্মীয় স্বাধীনতা সংক্রান্ত মার্কিন কমিশনটি। আমেরিকা সরকারের কাছে তারা সুপারিশ করেছে যাতে, ভারতকে ‘নির্দিষ্টভাবে সমস্যাযুক্ত’ দেশের তালিকায় রাখা হয়। এই তালিকায় পাকিস্তান এবং উত্তর কোরিয়া, চিনের মতো ১৪টি দেশ রয়েছে যেখানে প্রতিদিন সংখ্যালঘুদের উপর অকথ্য অত্যাচার করা হচ্ছে। ২০০৪ সালের পর এই প্রথম ভারত ধর্মীয় স্বাধীনতার নিরিখে এতটা নিচে নেমে গেল। সেবারে গুজরাট দাঙ্গার প্রেক্ষিতে ভারতকে ‘নির্দিষ্টভাবে সমস্যাযুক্ত’ দেশের তালিকায় নামিয়ে দেওয়া হয়েছিল।

[আরও পড়ুন: কোয়ারেন্টাইনে দায়িত্বে থাকা চিকিৎসক! করোনা পরীক্ষা হতে পারে লালুপ্রসাদ যাদবের]

উল্লেখ্য, দিল্লি হিংসার পরও সংখ্যালঘুদের প্রতি ভারত সরকারের মনোভাব নিয়ে সরব হয়েছিল আমেরিকার এই কমিশন। তাঁদের অভিযোগ ছিল, দিল্লিতে বেছে বেছে মুসলিমদের উপর হামলা চালানো হচ্ছে। এই নৃশংস হিংসা থেকে সাধারণ নাগরিকদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ ভারত সরকার। ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে সরকারের ‘নীরবতা’ নিয়েও প্রশ্ন তোলে USCIRF। মনে করা হচ্ছে দিল্লির হিংসার জন্যই ভারতকে ‘নির্দিষ্টভাবে সমস্যাযুক্ত’ দেশের তালিকায় রেখেছে আমেরিকার এই সংস্থাটি। নিজেদের রিপোর্টে CAA-NRC এবং কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বাতিলের কথাও উল্লেখ করেছে USCIRF। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকেও কাঠগড়ায় তুলেছে তারা।

[আরও পড়ুন: এবার করোনার থাবা শীর্ষ আদালতেও, কোভিড-১৯ পজিটিভ রেজিস্ট্রি বিভাগের কর্মী]

প্রত্যাশিতভাবেই এই রিপোর্টের জন্য USCIRF-কে তুলোধোনা করেছে নয়াদিল্লি। ভারত জানিয়েছে, “আমেরিকার সংস্থাটির ভারতের প্রতি পক্ষপাতদুষ্ট এবং অবিবেচক মানসিকতা নতুন কিছু নয়। কিন্তু এবার তাঁরা মাত্রা ছাড়িয়েছে। আমরা এই রিপোর্ট প্রত্যাখ্যান করছি। এটি নির্দিষ্ট উদ্দেশ্যে প্রকাশ করা। এবং সেইমতোই এর প্রেক্ষিতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement