BREAKING NEWS

২২ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  বৃহস্পতিবার ৯ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

নাক ডাকায় ঘুমের ব্যাঘাত! বচসার জেরে বাবাকে পিটিয়ে খুন করল ছেলে

Published by: Abhisek Rakshit |    Posted: August 12, 2020 2:52 pm|    Updated: August 12, 2020 2:52 pm

Uttar Pradesh: Irritated By Snoring, Son Allegedly Beat His Father to Death With Stick

ছবি: প্রতীকী

‌সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:‌ ঘুমানোর সময় ‘‌নাক ডাকে’‌ বাবা। আর বাবার সেই নাক ডাকাটাই সহ্য করতে না পেরে প্রথমে ঝগড়া এবং পরে লাঠি দিয়ে বাবাকে পিটিয়ে মারার অভিযোগ উঠল বড় ছেলের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি উত্তরপ্রদেশের (Uttar Pradesh) পিলভিট (Pilbhit) জেলার সৌধা গ্রামের। ইতিমধ্যে ঘটনায় মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। ৬৫ বছর বয়সি মৃত রামস্বরূপের দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। পলাতক অভিযুক্ত ছেলে।

[আরও পড়ুন: ভারতে ঢুকে ১ হাজার কোটির কেলেঙ্কারি! আয়কর বিভাগের নজরে চিনা নাগরিক]

জানা গিয়েছে, রামস্বরূপ ওই গ্রামে স্ত্রী এবং দুই ছেলে নবীন এবং মুকেশকে নিয়ে থাকতেন। ঘটনার দিন অর্থাৎ মঙ্গলবার রাতে ছোট ছেলেকে নিয়ে এক আত্মীয়ের বাড়িতে গিয়েছিলেন রামস্বরূপের স্ত্রী। এর আগেও বাবার সঙ্গে বড় ছেলে নবীনের একাধিকবার ঝামেলা হলেও এদিনের ঝামেলা অন্যমাত্রা পেয়েছিল। এদিন প্রথমে বাবার নাক ডাকা নিয়ে তাঁর সঙ্গে ঝগড়া শুরু করে ছেলে। তারপরই মারমুখী হয়ে ওঠে সে। একটি লাঠি দিয়ে নিজের বাবাকেই বেধড়ক মারতে থাকে। মারের চোটে খাটের থেকে পড়ে গিয়ে অজ্ঞান হয়ে যান। এরপরই সেখান থেকে পালিয়ে যায় নবীন। খবর পেয়ে বাড়ি ফিরে আসে ওই বৃদ্ধের ছোট ছেলে মুকেশ। এরপর গুরুতর আহত বাবাকে হাসপাতালে নিয়ে গেলেও চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

[আরও পড়ুন: চোখের নিমেষে আগুনের গ্রাসে গোটা বাস, পুড়ে মৃত্যু অন্তত ৫ জনের]

খবর পেয়ে আসে পুলিশ। শুরু হয়েছে তদন্ত। তবে এখনও পলাতক অভিযুক্ত নবীন। তাঁর খোঁজে চলছে চিরুণী তল্লাশি। এই প্রসঙ্গে এক পুলিশ আধিকারিকের বক্তব্য, ‘‌‘ঘরোয়া হিংসার কারণেই এই ঘটনা ঘটেছে। গত রাতে নাক ডাকা নিয়ে বাবা ও ছেলের মধ্যে ঝামেলা হয়। এরপরই রেগে গিয়ে বাবাকে মারতে থাকে ছেলে। তাতেই মৃত্যু হয় ওই বৃদ্ধের। আপাতত তাঁর দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্ত ছেলে পলাতক। তার খোঁজে তল্লাশি চলছে।’‌’‌

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে