Advertisement
Advertisement

Breaking News

Uttarakhand

উত্তরাখণ্ডের দাবানলে মৃত বেড়ে ৫, চাতকের মতো বৃষ্টির অপেক্ষায় দগ্ধ জঙ্গল

আগুন নেভাতে অভিজ্ঞ কর্মীদের পাশাপাশি ব্যবহার করা হচ্ছে বায়ুসেনার এম-১৭ হেলিকপ্টার।

Uttarakhand forest fire, peoples are waiting for rain
Published by: Amit Kumar Das
  • Posted:May 6, 2024 7:46 pm
  • Updated:May 6, 2024 7:46 pm

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আগুনের গ্রাসে উত্তরাখণ্ডের (Uttarakhand) একের পর এক জঙ্গল। ভয়ংকর গরমে আরও বেড়ে উঠছে তার তীব্রতা। জঙ্গল ছাড়িয়ে আগুন কোথাও কোথাও ঢুকে পড়েছে লোকালয়ে। পুড়ে ছাই হয়েছে মানুষের ঘর-বাড়ি, গবাধি পশুর পাশাপাশি শেষ সম্বলটুকুও। দাবানলের (Forest fire) জেরে উত্তরাখণ্ডে গত ৩ দিনে মৃত্যু হয়েছে ৫ জনের। এই পরিস্থিতিতে ভয়াবহ এই অগ্নিকাণ্ড থেকে রেহাই পেতে চাতকের মতো বৃষ্টির অপেক্ষায় দিন গুনছেন রাজ্যবাসী।

জঙ্গলের আগুন নিভতে বৃষ্টিই যে একমাত্র পথ তা স্বীকার করে নিচ্ছেন সরকারি আধিকারিকরাও। এই অবস্থায় আশার আলো দেখিয়েছে উত্তরাখণ্ডের আবহাওয়া দপ্তর। জানানো হয়েছে, ৭ মে অর্থাৎ মঙ্গলবার থেকে উত্তরাখণ্ডে শুরু হতে পারে বৃষ্টি। আগামী ১১ মে থেকে বৃষ্টির তীব্রতা আরও বাড়বে। অনুমান করা হচ্ছে, এই বৃষ্টিই আগুনের হাত থেকে বাঁচাতে পারে জঙ্গলকে। আগুন নেভাতে গোটা রাজ্য বৃষ্টির অপেক্ষায় থাকলেও কোনও কারণে বৃষ্টি না হলে অন্য পথে কীভাবে আগুন নেভানো যায় তার পথও খুঁজছে প্রশাসন। দাবানলের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে উচ্চ পর্যায়ের আধিকারিকদের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক করেছেন মুখ্যমন্ত্রী পুষ্কর সিং ধামী। আগুন নেভাতে অভিজ্ঞ কর্মীদের পাশাপাশি ব্যবহার করা হচ্ছে বায়ুসেনার এম-১৭ হেলিকপ্টার।

Advertisement

[আরও পড়ুন: পুঞ্চ হামলার নেপথ্যে ২ পাক জঙ্গি, সন্ধান দিলে ২০ লক্ষ টাকা পুরস্কার]

এদিকে, দাবানলের জেরে গত রবিবার মৃত্যু হয়েছে আরও এক প্রৌঢ়ার। জানা গিয়েছে, পূজা নামে ওই মহিলা ছিলেন নেপালি শ্রমিক। শনিবার আলমোড়া জেলায় তাঁর খামার বাড়িতে আগুন লাগলে গবাদি পশুদের বাঁচাতে ঝাঁপিয়ে পড়েন তিনি। গায়ে আগুন লেগে গুরুতর আহত হন পূজা। দ্রুত তাঁকে এইমস হাসপাতালে ভর্তি করা হলে রবিবার সেখানেই মৃত্যু হয় তাঁর। এর আগে, এই জেলারই একটি পাইন রজন কারখানায় আগুন লাগলে সেই আগুন নেভাতে গিয়ে মৃত্যু হয়েছিল ৩ শ্রমিকের। সব মিলিয়ে দাবানলের জেরে এখনও পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৫।

Advertisement

[আরও পড়ুন: যত প্রয়োজন, তত সংরক্ষণ! ভোটপ্রচারে ৫০ শতাংশের সীমা ছাড়ানোর ঘোষণা রাহুলের]

অগ্নিকাণ্ডের জেরে প্রবল ধোঁয়ায় দৃশ্যমানতা কমে যাওয়ায় বিমান চলাচল বন্ধ করা হয়েছে পিথারগড়ের নৈনি-সাইনি বিমান বন্দরে। শিশু ও বয়স্কদের জন্য চিকিৎসা সংক্রান্ত সমস্যা গুরুতর আকার নিয়েছে। সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, বাড়ির বাইরে বেরলে সাধারণ মানুষ যেন অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করেন। এদিকে উত্তরাখণ্ড বন দপ্তরের পরিসংখ্যান বলছে, গত বছরের নভেম্বর থেকে এখনও পর্যন্ত রাজ্যের ৯১০টি জঙ্গলে আগুন লাগার ঘটনা ঘটেছে। বেশির ভাগই মনুষ্যসৃষ্ট। এর ফলে বন দপ্তরের ১১৪৫ হেক্টর জমি নষ্ট হয়েছে।

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ